কোরবানির পরে অবশ্যই যা যা করণীয়

সারা দেশে এমনিতেই ডেঙ্গু মহামারি আকার ধারণ করেছে, তার উপর কোরবানির বর্জ্য যদি দ্রুত ও যথাযথবাবে পরিষ্কার করা না হয় তবে পরিবেশে জীবাণুর মাত্রা আরও কয়েকগুণ বেড়ে যাবে। তাই কোরবানির পরে যেন পরিবেশে দুর্গন্ধ না ছড়ায় সেজন্র ব্যক্তি ও সামাজিক উদ্যোগে সচেতন থাকতে হবে। পাশাপাশি অন্যদেরও সচেতন করতে হবে।

কোরবানির পশুর মলমূত্র তো যেখানে সেখানে ফেলা যাবেই না, একইসঙ্গে নজর দিতে হবে কোরবানির স্থানটি জীবাণুমুক্ত করার প্রতিও। কোরবানির পর সাধারণত কিছু বিষয় মাথায় রাখতে হবে। সেগুলো হলো:

১. পশু কোরবানির পর যতটা সম্ভব দ্রুত পানি ও ঝাড়ু দিয়ে স্থানটি পরিষ্কার করে ফেলুন।

২. ধোয়া শেষে ব্লিচিং পাউডার ছিটিয়ে দিন।

৩. মাংস কাটার আগে পাটি বিছিয়ে নিন।

৪. মাংস কাটা শেষে মেঝে পরিষ্কার করে নিন। পানিতে স্যাভলন মিশিয়ে মুছুন। চাইলে লেবুমিশ্রিত পানি দিয়ে মুছে নিতে পারেন মেঝে। এতে দুর্গন্ধ ও তেলেতেলে ভাব কমে যাবে।

৫. মাংস কাটার কাজে ব্যবহৃত দা, বটি, ছুরি- গরম পানি ও সাবান দিয়ে ভালো করে পরিষ্কার করুন।

৬. মাংস ধোয়ার সময় চর্বি আটকে বন্ধ হয়ে যেতে পারে সিঙ্ক। বেকিং পাউডার গরম পানির সঙ্গে মিশিয়ে ঢেলে দিন সিঙ্কে। চর্বি গলে যাবে। সিঙ্গ থাকবে ধবধবে পরিষ্কার।

৭. কোরবানির মাংস কাটাকাটির পর হাতে অনেক সময় গন্ধ লেগে থাকে। কিন্তু মাংস কাটা শেষ হয়ে গেলে তখনেই হাত ভালো করে ধুয়ে নিন। ধোয়ার আগে হাতে ঘষে নিন লেবু।

৮. যদিও কাপড়ে কোরবানির পশুর রক্তের দাগ লাগে তবে লবণ-পানিতে সেই কাপর অন্তত ২ ঘণ্টা ভিজিয়ে রেখে তারপর ধুয়ে ফেলুন।