বিশ্বখ্যাত এয়ার কোম্পানি এয়ার ফ্রান্সের সঙ্গে বাংলাদেশের সিভিল এভিয়েশন কর্তৃপক্ষের একটি কারিগরি চুক্তি করতে সম্মতি দিয়েছে মন্ত্রিসভা। ফ্রান্সের ডিরেক্টর জেনারেল অব সিভিল এভিয়েশনের সঙ্গে ওই চুক্তির ফলে একটি রাডার সিস্টেম কিনবে বাংলাদেশ, যার ফলে এয়ার ব্যবস্থাপনা উন্নয়নের পাশাপাশি দেশের আকাশে যেকোনো প্লেন উড্ডয়ন করলেই তা শনাক্ত করা যাবে। পাশাপাশি দেশের উপর দিয়ে অন্য দেশের প্লেন গেলে নির্দিষ্ট ফি পাবে বাংলাদেশ। সোমবার (২০ জুলাই) গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে মন্ত্রিসভার বৈঠকে প্রস্তাবিত এই চুক্তির অনুমোদন দেওয়া হয়। বৈঠক শেষে সচিবালয়ে ব্রিফিংয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, বাংলাদেশ ও ফ্রান্সের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক বিমান চলাচলের ক্ষেত্রে কারিগরি সহায়তা ও তথ্য আদান প্রদানের উদ্দেশ্যে প্রস্তাবিত এই চুক্তির অনুমোদন দেওয়া হয়। তিনি বলেন, চুক্তির ফলে বিভিন্ন স্ট্যান্ডার্ড বাস্তবায়নে বাংলাদেশ ও ফ্রান্স একসঙ্গে কাজ করবে। ফলে এয়ার নেভিগেশন, বেসামরিক বিমান পরিচালনা ও রক্ষণাবেক্ষণ পরিকল্পনা এবং এয়ারপোর্টর ব্যবস্থাপনা উন্নত হবে। এছাড়া বেসামরিক বিমানের সুরক্ষিত উড্ডয়ন ব্যবস্থাপনা এবং বেসরকারি বিমান যতটুকু সুযোগ-সুবিধা পাওয়ার কথা তা পায় কি-না তা দেখবে এয়ার ফ্রান্স। তারা অডিটও দেখবে, আমরাও তাদের অডিট দেখতে পাবো। কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কারিগরি জ্ঞান দেওয়ার জন্য প্রশিক্ষণ এবং এয়ার নিরাপত্তা দেওয়ার কাজ করবে। মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, সব থেকে বড় জিনিস হচ্ছে- তারা আমাদের নতুন একটা রাডার সিস্টেম দিচ্ছে, সেই রাডার সিস্টেম দেওয়ার ফলে বাংলাদেশের টেরিটরি দিয়ে যত প্লেন যাবে সবই রাডারের মধ্যে চলে আসবে এবং সবাইকে একটা নির্দষ্ট ফি দিতে হবে। এখন আমরা এটা কাভার করতে পারি না। কারণ আমাদের যে রাডার সিস্টেম তাতে সব প্লেনকে আমরা কাভার করতে পারি না। তিনি বলেন, এয়ার ফ্রান্সের সঙ্গে আমাদের যে চুক্তি হবে, সেই চুক্তিতে জিটুজি ভিত্তিতে ওরা যে আমাদের রাডার সিস্টেম করে দেবে, সেই রাডার সিস্টেমের ফলে আমরা তখন ক্লিয়ারলি দেখতে পাবো সবাইকে, কারা কারা আমাদেরৃ। প্রত্যেকটা প্লেন আমাদের মিনিমাম ৫০০ ডলার করে ফি দিতে বাধ্য। আমাদের প্লেন ভারতের উপর দিয়ে যায়, বাংলাদেশ সেজন্য ফি পে করে। আমাদের রাডার সিস্টেম উন্নত ছিল না, সেজন্য আমরা ট্রেস করতে পরতাম না। ‘চুক্তির ফলে আমরা তাদের কাছে যে রাডার সিস্টেম কিনব, তারা আমাদের ট্রেইন আপ করবে তাতে যেকোনো প্লেন বাংলাদেশের উপর দিয়ে ঢুকলেই ডিটেক্ট কেরে ফেলবে। ’