সৈয়দ আশরাফুলের ম্যুরাল ভাংচুরের ঘটনায় যুবক আটক

সৈয়দ আশরাফুলের ম্যুরাল ভাংচুরের ঘটনায় যুবক আটক।

কিশোরগঞ্জে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও প্রাক্তন জন প্রশাসনমন্ত্রী মরহুম সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের ম্যুরাল ভাংচুরের ঘটনায় জড়িত সন্দেহে ২৪ ঘন্টা যেতে না যেতেই পারভেজ (৪০) নামে এক যুবককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।
অভিযুক্তকে ধরতে বিকাল চারটার দিকে পুলিশের একটি দল অভিযান চালিয়ে জেলা শহরের আখড়া বাজার সেতুর উত্তর দিকে শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম চত্ত্বর সংলগ্ন এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।
কিশোরগঞ্জ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু বকর সিদ্দিীক বিষয়টির সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, গ্রেপ্তার হওয়া পারভেজ জেলার ইটনা উপজেলার রায়টুটী পশ্চিমপাড়ার মৃত শাহজাহান চৌধুরীর ছেলে। সে শহরের চরশোলাকিয়া বনানী মোড় এলাকার একটি বাসায় ভাড়া থাকে।
ওসি জানান, ম্যুরাল ভাংচুরের ঘটনায় সকালে কিশোরগঞ্জ পৌরসভার সহকারী প্রকৌশলী শরীফুল ইসলাম বাদী হয়ে কিশোরগঞ্জ মডেল থানায় বিশেষ ক্ষমতা আইনে অজ্ঞাত পরিচয়ের আসামীদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন। মামলা দায়েরের পর বিকালে অভিযান চালিয়ে এ ঘটনায় জড়িত অভিযোগে পারভেজকে পুলিশ আটক করে। পারভেজকে আদালতে প্রেরণের প্রস্তুতিসহ পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।
গতকাল রাত নয়টার মধ্যে কোন এক সময়ে অজ্ঞাত পরিচয়ের দুর্বৃত্তরা সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের ম্যুরাল ভাঙচুর করা হয় বলে ধারণা করা হচ্ছে। দুর্বৃত্তরা সৈয়দ আশরাফের ছবি সংবলিত ম্যুরাল ও মেয়র পারভেজ মিয়ার উদ্বোধনী স্মৃতিফলকটি ভাঙচুর করে। জেলা শহরের আখড়া বাজার সেতুর উত্তর দিকে শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম চত্ত্বরে সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের ম্যুরালটি অবিস্থিত।
খবর পেয়ে রাত ১১টার দিকে জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ শামীম আলম, পুলিশ সুপার মো. মাশরুকুর রহমান খালেদ, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. কাদির মিয়া, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এম.এ আফজল ও পৌরসভার মেয়র পারভেজ মিয়া ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।
এর প্রতিবাদে কিশোরগঞ্জ নাগরিক অধিকার সুরক্ষা মঞ্চের ব্যানারে মুর‌্যালের সামনে আজ সকালে অনুষ্ঠিত প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তরা আগামি চব্বিশ ঘন্টার মধ্যে দোষীদের খুঁজে বের করে আইনের আওতায় এনে সর্ব্বোচ শাস্তির দাবি জানান।
এদিকে ঘনার ২৪ ঘন্টা পার হওযার আগেই একজনকে আটক করায় জনমনে অনেকটাই স্বস্তি ফিরে এসেছে। বেড়েছে পুলিশের প্রতি আস্থাও।