সুনির্দিষ্ট অভিযোগ ছাড়া পশুবাহী গাড়ি-ট্রলার থামানো যাবে না : আইজিপি

কোরবানির পশুবাহী পরিবহনে যেন কোনো ধরনের চাঁদাবাজি না হয়, সে বিষয়ে আইনশৃংখলা বাহিনীর সদস্যদের কঠোর বার্তা দিয়েছেন পুলিশ মহাপরিদর্শক (আইজিপি) বেনজীর আহমেদ। সুনির্দিষ্ট কারণ ছাড়া তল্লাশির নামে গাড়ি থামানো যাবে না।

বৃহস্পতিবার পুলিশ সদর দফতরে ইউনিট প্রধানদের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সে তিনি এ বার্তা দেন।

আইজিপি বলেন, সড়ক ও নৌপথে কোরবানির পশুবাহী যানবাহনের চলাচল নির্বিঘ্ন করতে হবে। সুনির্দিষ্ট অভিযোগ ছাড়া পশুবাহী গাড়ি না থামানোর নির্দেশ দেন তিনি। হাইওয়ে পুলিশ ও সংশ্লিষ্ট জেলা পুলিশ কোরবানির পশুবাহী গাড়ির নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে প্রয়োজনে ক্যাম্প স্থাপন করবে। এ ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট ইউনিটের সঙ্গে সমন্বয় করতে হবে।

পুলিশ প্রধান বলেন, পশুর হাটে স্বাস্থ্যবিধি মেনে পশু কেনাবেচা নিশ্চিত করতে হবে। মাস্ক ছাড়া কেউ হাটে প্রবেশ করতে পারবে না।

ঈদে ঘরে ফেরা মানুষের চলাচল নির্বিঘ্ন করতে স্বাভাবিক ট্রাফিক ব্যবস্থা বজায় রাখতে নির্দেশ দেন আইজিপি। তিনি বলেন, ঈদুল আজহাকে সামনে রেখে সুনির্দিষ্ট কারণ ছাড়া তল্লাশির নামে গাড়ি থামানো যাবে না।

ট্রেনসহ পরিবহনের টিকিট কালোবাজারির বিরুদ্ধেও সতর্ক করেন আইজিপি। বলেন, ট্রেনের টিকিট যাতে কালোবাজারি না হয় সেদিকেও নজর বাড়াতে হবে। বাস ও অন্যান্য পরিবহনে যেন অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করা না হয়, সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে। ফেরি চলাচল স্বাভাবিক রাখতে হবে। পরিবহনে জীবাণুনাশক ছিটানো নিশ্চিত করতে হবে। সড়কে ফিটনেসবিহীন গাড়ি চলাচল বন্ধ থাকবে। মহাসড়কে থ্রি হুইলার, করিমন, নসিমন ইত্যাদি যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকবে।

চুরি-রাহাজানির বিরুদ্ধে সতর্ক থাকার পরামর্শ দেন পুলিশ প্রধান। বলেন, বর্তমান করোনা পরিস্থিতির কারণে কিছু কিছু অপরাধ বৃদ্ধির আশঙ্কা আছে। আবাসিক ও বাণিজ্যিক এলাকায় চুরি, ডাকাতি ও অন্যান্য অপরাধ বন্ধের লক্ষ্যে টহল বাড়ানোর জন্য সংশ্লিষ্ট সবাইকে নির্দেশ দেন তিনি।