সাংসদ ইকবাল হোসেন অপু নিয়ে একনিষ্ঠ সমর্থক রুপক চক্রবর্তী’র হৃদয়ের অনুভূতি

স্টাফ রিপোর্টার :
শরীয়তপুর ১ (পালং-জাজিরা) আসন থেকে গত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিপুর পরিমান ভোটে বিজয়ী সংসদ সদস্য, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য, ৯০ এর দশকের রাজপথ কাঁপানো তুখোড় ছাত্রনেতা, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় সংসদের সাবেক সহ-সভাপতি, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জননেতা ইকবাল হোসেন অপু’কে হৃদয়ের অনুভূতি প্রকাশ করেছেন সাংসদ ইকবাল হোসেন অপুর একজন একনিষ্ঠ কর্মী ও সমর্থন বাংলাদেশ ছাত্রলীগ শরীয়তপুর জেলা শাখার একনিষ্ঠ একনিষ্ঠ নিবেদিত কর্মী, সুনামধন্য বিদ্যাপীঠ জেড. এইচ. সিকদার বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে আইন বিভাগের চতুর্থ বর্ষের মেধাবী ছাত্র, আইন বিভাগ ল সোসাইটির ভাইস প্রেসিডেন্ট রুপক চক্রবর্তী। রুপক চক্রবর্তী ০৭ই ডিসেম্বর ২০১৯ দিবাগত রাতে সাংসদ ইকবাল হোসেন অপু ‘কে তাহার ভেরিফাইট সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে
“প্রানপ্রিয় নেতা ইকবাল হোসেন অপু ভাই’কে ঘিরে হৃদয়ে কিছু অনুভূতি” শিরোনামে একটি পোস্ট করেন। নিচে পোস্ট সম্পূর্ণ ভাবে তুলে ধরা হলো।
প্রানপ্রিয় নেতা ইকবাল হোসেন অপু ভাই’কে ঘিরে হৃদয়ে কিছু অনুভূতি।

প্রিয় নেতা, প্রিয় ভাই আপনাকে যত দেখি ততই মুগ্ধ হই। আপনার সুনিপুণ কর্ম দক্ষতা দেখে গৌরবে হৃদয় পরিপূর্ণ হয়ে উঠে। আপনি এমন একজন মনের মানুষ যিনি বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় নেতা এবং সংসদ সদস্য হওয়া সত্যেও যার হৃদয়ের মাঝে মান অহংকার বলতে কিছু নেই। আসলে আমার এই ক্ষুদ্র জ্ঞান এ যতটুকু বুঝি একজন নেতার তো এমন টাই হওয়া উচিত। যার কাছে নির্ভয়ে, বিনাদ্বিদায় সবাই যেতে পারে। কখনো আপনাকে দেখি নি কেউ আপনার কাছে কোন উপকার বা কোন কাজের জন্য আসলে তার সাথে খারাপ ব্যবহার করতে বা একটু উচু গলায় কথা বলতে বরং দেখেছি আগত সেই ব্যাক্তিকে হাসি মুখে বসতে বলতে, চা-নাস্তা গ্রহনের আমন্ত্রণ জানাতে এবং সম্ভব হলে তার কাজের তাৎক্ষিন ভাবে সমাধান করতে। প্রিয় নেতা আপনাকে কখনো দেখা যায় রাস্তায় ঘুরে বেড়ানো প্রতিবন্ধী ছেলে টাকে জড়িয়ে ধরে আদর করতে এবং তার আবদার মেটাতে, কখনো দেখা যায় রিকসা চালকের সাথে, অটো চালকের সাথে, রাস্তা দিয়ে হেটে মানুষের সাথে সুমধুর হাসির সহিত হাতমেলাতে, কখনো দেখা মুচির পাশে মাটিতেই কোন রকম ভাবে বসে তার জীবনের বেদনার কাহিনি শুনতে। আবার কখনো দেখা যায় রাতের বেলা ঝড় তুফান উপেক্ষা করেই ঝড়ের কবলে পড়ে ক্ষতিগ্রস্ত লোকদের পাশে গিয়ে দাড়াতে।

এই তো সেদিনের কথা আপনি অসুস্থ হয়ে ল্যাবএইড হসপিটালের সিসিইউ তে চিকিৎসাধীন ছিলেন কিন্তু সেই অসুস্থতার রেশ পুরোপুরি কাটতে না কাটতেই উত্তাল পদ্মা পাড়ি দিয়ে ছুটে চলেছেন জাজিয়ায় বন্যার প্লাবিত মানুষ দের পাশে গিয়ে দাড়াতে, তাদের সহযোগিতা করতে। সদা সর্বদা পালং জাজিরার মানুষ আপনাকে তাদের আপদে বিপদে, সুখে-দুঃখে পাশে পায় কারন আপনি তো জনতার নেতা। সংসদ সদস্য নির্বাচিত হবার পরও প্রিয় নেতা ইকবাল হোসেন অপু ভাইয়ের মাঝে বিন্দু পরিমান কোন পরিবর্তন দেখা যায় নি। সেই আগের মতো এখনো তিনি ধানমন্ডি ৩/এ তে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী রাজনৈতিক কার্যালয়ের সামনের অবসর সময় কাটান। মোটামুটি ঐ স্থানই তার অফিস বললে চলে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক কার্যালয়ের সামনে আপনাকে দেখা যায় আম গাছের নিচে বসেই জনগণের জন্য কাজ করতে, আবার আপনাকে দেখা যায় কড়া রোদের তাপের মাঝে নদীর পাড়ে খোলা আকাশের নিচে বসেই জনগনের কাজ করার জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর অর্পিত দায়িত্বের বহিঃপ্রকাশ ঘটাতে। দেশে বা ঢাকায় বেশির ভাগ সময়ই রিকসা, অটো বা হেটে চলফেলা করেন। অপ্রয়োজনে কখনো গাড়িও ব্যাবহার করেন না। প্রিয় নেতা ইকবাল হোসেন অপু ভাই তার একমাত্র সন্তান দানিব বিন ইকবাল (আদর)কে যতটা ভালবাসে তেমনি করে ভালবাসেন তিনি তার প্রতিটি কর্মীকে। সংসদ সদস্য হওয়ার এক বছরের মধ্যেই তিনি যায়গা করে নিয়েছেন শরীয়তপুর ১ আসনের প্রতিটি জনগনের হৃদয়ের মনিকোঠায়।

প্রিয় নেতা প্রিয় ভাই আমি আপনার একজন ক্ষুদ্র কর্মী হতে পেরে গর্ববোধ করি। আমি মনে প্রানে বিশ্বাস করি হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালী জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যে সোনার বাংলা গড়তে চেয়েছিলেন আপনার মতো সোনার ছেলে দের দিয়েই সেই সোনার বাংলা গড়া সম্ভব। আপনার মতো পরিশ্রমী, জনদরদী, সৎ, নির্লোভ, জনপ্রিয় নেতা দের দিয়েই মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু তনয়া জননেত্রী শেখ হাসিনার স্বপ্ন ক্ষুদা মুক্ত, দারিদ্র্য মুক্ত, মাদক মুক্ত, সন্ত্রাস মুক্ত, জঙ্গি মুক্ত সোনার বাংলা গড়া সম্ভব। আপনি পালং-জাজিরা তথা সারা শরীয়তপুর বাসীর গর্ব। আপনি দক্ষিণ বাংলার উজ্জ্বল নক্ষত্র 💖

আগামী ২০ ও ২১ শে ডিসেম্বর বাংলাদেশ আওয়ামীগের ২১ তম জাতীয় সম্মেলন। আসন্ন সম্মেলনে আমাদের প্রানের নেতা, শরীয়তপুরের মাটি ও মানুষের হৃদয়ের স্পন্দন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দেশরত্ন জননেত্রী শেখ হাসিনার আস্তাভাজন, দলের দুঃসময়ের রাজপথ কাঁপানো তুখোড় ছাত্রনেতা, বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাবেক সহ সভাপতি, শরীয়তপুর ১ আসনের মাননীয় সংসদ সদস্য, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির অন্যতম সদস্য জননেতা ইকবাল হোসেন অপু ভাইকে আওয়ামীলীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির গুরুত্বপূর্ণ পদে দেখতে চাই।

প্রিয় ভাই আমার হৃদয়ের হৃদয়স্পন্দন থেকে আপনার জন্য সর্বদা অনেক অনেক শুভ কামনা। আমি আমার প্রানের স্পন্দন থেকে পরম করুণাময় সৃষ্টিকর্তার নিকট প্রার্থনা করি তিনি সর্বদা আপনাকে সুস্থ রাখুক এবং এভাবেই জনগণের সেবায় নিয়োজিত রাখুক।
আপনাকে নিয়ে গর্ব হয় ভাই।

শুভ কামনায়ঃ আপনার ক্ষুদ্র কর্মী রুপক চক্রবর্তী।