শেরেবাংলা একে ফজলুল হকের ৫৯তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

অবিসংবাদিত জাতীয় নেতা, বাঙালি জাতীয়তাবাদের অন্যতম প্রবক্তা ও উপমহাদেশের প্রখ্যাত রাজনীতিবিদ শেরেবাংলা আবুল কাশেম ফজলুল হকের ৫৯তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ। ১৯৬২ সালের এই দিনে তিনি মারা যান।
শেরেবাংলা একে ফজলুল হকের জন্ম ১৮৭৩ সালের ২৬ অক্টোবর ঝালকাঠির রাজাপুর উপজেলার সাতুরিয়া গ্রামে। বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবনে তিনি পাকিস্তান কেন্দ্রীয় সরকারের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, পূর্ব পাকিস্তানের গভর্নর, যুক্তফ্রন্ট সরকারের মুখ্যমন্ত্রী, অবিভক্ত বাংলার মুখ্যমন্ত্রী, কলকাতা সিটি করপোরেশনের প্রথম মুসলিম মেয়র, আইনসভার সদস্যসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেন। ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা ছিল তার।

শেরেবাংলা ছিলেন সাহসী, জনদরদি ও অসাধারণ বাগ্মী রাজনৈতিক নেতা। ১৯৪০ সালে ঐতিহাসিক লাহোর প্রস্তাবের উত্থাপক। ২১ দফা দাবিরও প্রণেতা ছিলেন তিনি। প্রজাস্বত্ব কায়েম ও মহাজনি প্রথা উচ্ছেদের মাধ্যমে বাঙালি সমাজে সামন্ত যুগের পতনঘণ্টা বাজানোর ক্ষেত্রে তার অনন্যসাধারণ অবদান ছিল। ঋণ সালিশি বোর্ড গঠন করে ঋণে জর্জরিত কৃষক সমাজকে চরম ভোগান্তির হাত থেকে রক্ষা করেন। শিক্ষানুরাগী ও সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির প্রতীক হিসেবেও ইতিহাসের পাতায় তার রয়েছে গুরুত্বপূর্ণ স্থান।
শেরেবাংলার মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাণী দিয়েছেন। পৃথক বাণীতে মরহুমের স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদনসহ তার আত্মার শান্তি কামনা করেছেন তারা।
করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে সংক্ষিপ্ত কর্মসূচির মধ্য দিয়ে দিনটি পালিত হবে। শেরেবাংলার পরিবারের পক্ষ থেকে আজ তার সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদন ছাড়াও রাজধানীর বনানীর বাসায় মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করা হয়েছে।
এ ছাড়া আওয়ামী লীগ সকাল ৯টায় স্বাস্থ্যবিধি মেনে তার সমাধিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ, ফাতেহা পাঠ ও বিশেষ মোনাজাতের আয়োজন করেছে।