লোহিত রক্তকণিকা বাড়াতে সাহায্য করে যে খাবারগুলি

আপনি কি দুর্বল অনুভব করেন? একটুতেই ক্লান্ত হয়ে যান? এখন থেকেই সাবধান হন। এগুলো সব রক্তাল্পতার সাধারণ লক্ষণ। যাকে ডাক্তারি পরিভাষায় বলে অ্যানিমিয়া।
লোহিত রক্তকণিকা কী?
লোহিত রক্তকণিকা আমাদের রক্তের সাধারণ কোষ। প্রতিদিন আমাদের দেহ কোটি কোটি লোহিত রক্তকণিকা তৈরি করে। লোহিত রক্তকণিকা তৈরি হওয়ার পর সেটি অস্থি মজ্জা উৎপাদন করে এবং ১২০ দিন শরীরে চলাচল করে। তারপর লিভারে পৌঁছয়। সেখানে তাদের সেলুলার উপাদানগুলি পুনর্ব্যবহার করা হয়। আমাদের দেহে এই লোহিত রক্তকণিকা ঠিকমতো তৈরি না হলে হাজার রোগ দেখা দিতে পারে। বিভিন্ন কারণে লোহিত রক্তকণিকা কমে যেতে পারে, সেক্ষেত্রে কী করবেন জেনে নিন এই প্রতিবেদনে। বাড়িতে শুধুমাত্র ঠিকমতো খাওয়া-দাওয়া করলেই লোহিত রক্তকণিকা বেড়ে যেতে পারে। যে পাঁচটি উপাদান লোহিত রক্তকণিকা বাড়াতে সাহায্য করবে সেগুলি হল আয়রন, ফলিক অ্যাসিড, ভিটামিন বি-১২, কপার এবং ভিটামিন-এ।

আয়রন সমৃদ্ধ খাবার
শরীরে লোহিত রক্তকণিকা তৈরির জন্য আয়রন সমৃদ্ধ খাবার খাওয়া প্রয়োজন। লোহিত রক্তকণিকা তৈরিতে লাল মাংস, বিশেষ করে কলিজা, সবুজ শাকসবজি যেমন – পালং শাক, ড্রায়েড ফ্রুটস যেমন কিসমিস, বিনস, ডিমের কুসুম, ইত্যাদি খান। এগুলো প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় রাখলে আপনার শরীরে রক্ত বৃদ্ধিতে সাহায্য করবে।
ফলিক অ্যাসিড
ফলিক অ্যাসিডও লোহিত রক্ত কণিকা উৎপন্ন করতে সাহায্য করে। যেসব খাবারে ফলিক অ্যাসিড পাওয়া যায় সেগুলি হল – খাদ্যশস্য, সবুজ শাকসবজি, বিনস, কড়াইশুঁটি, বাদাম।
ভিটামিন বি-১২
ভিটামিন ১২ সমৃদ্ধ খাবার লোহিত রক্ত কণিকা উৎপন্ন করতে সাহায্য করে। ভিটামিন বি-১২ আছে এমন খাবারগুলি হল – মাছ, খাসি বা গরুর মাংস, ডিম, দুগ্ধ জাতীয় খাবার।
কপার কপারযুক্ত খাবার খেলে লোহিত রক্ত কণিকা তৈরি হয় না। তবে কপার লোহিত রক্ত কণিকাকে সাহায্য করে আয়রন সংগ্রহে। ডিম, লিভার, বিনস, চেরি, বাদামে রয়েছে কপার।
ভিটামিন এ
লোহিত রক্ত কণিকা তৈরি করতে সাহায্য করে ভিটামিন এ। ভিটামিন-এ সমৃদ্ধ খাবার হল – সবুজ শাকসবজি, মিষ্টি আলু, গাজর, তরমুজ, আঙুরের মতো রসালো ফল।