রূপনগরে গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণ: সেই বেলুনওয়ালা আটক

রাজধানীর মিরপুরের রূপনগর আবাসিক এলাকার শিয়ালবাড়ি বস্তিতে বেলুনে গ্যাস ভর্তি করার সময় সিলিন্ডার বিস্ফোরণে ৭ শিশু নিহতের ঘটনায় সেই বেলুন বিক্রেতা আবু সাইদকে আটক করেছে পুলিশ।

বুধবার (৩০ অক্টোবর) রাতে পুলিশ তাকে পঙ্গু হাসপাতাল থেকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আটক করে। পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যাওয়া হয় তাকে। আবু সাইদের গ্রামেররবাড়ি চুয়াডাঙ্গায়। মিরপুরের দুয়ারীপাড়ায় ভাড়া বাসায় থাকেন তিনি।

বৃহস্পতিবার (৩১ অক্টোবর) সকালে রূপনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল কালাম আজাদ ব্রেকিংনিউজকে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলের, ‘আবু সাঈদ একটি পোশাক কারখানায় এবং টেইলার্সের দোকানে কাজ করতো। সেই কাজ ছেড়ে রঙিন গ্যাস বেলুনের ব্যবসা শুরু করেছে ১৫-২০ দিন থেকে। চকবাজার থেকে কেমিক্যাল কিনে নিজেই গ্যাস উৎপাদন করে বেলুন ব্যবসা শুরু করার কথা স্বীকার করেছে সে। অবৈধ বিস্ফোরকদ্রব্য রাখা ও নরহত্যার অভিযোগে তার নামে মামলা করা হবে।’

এরআগে গতকাল বুধবার বিকেলে রূপনগরের মনিপুর স্কুলের পূর্ব পাশে ১১ নম্বর সড়কের মাথায় বেলুনে গ্যাস ভরতে গিয়ে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত ৭ শিশু হলো- ফারজানা (৭), নূপুর (১১), রুবেল (১০), রমজান (৮), নিহাদ (৮), শাহিন (৯) ও রিয়া মনি (১০)। এদের মধ্যে সন্ধ্যার পর সোহরাওয়ার্দী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রিয়া মারা যায়। সবার লাশ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেলের মর্গে রাখা হয়েছে। আর রাত ১ টার দিকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায় নিহাদ।

ঢামেক হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক মোহাম্মদ আলাউদ্দিন ব্রেকিংনিউজকে জানান, আহতদের মধ্যে ৫/৬ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। এদের মধ্যে কারও মাথায় আঘাত লেগেছে। এক শিশুর নাড়ি বেরিয়ে গেছে। জান্নাত নামে এক নারীর ডান হাত বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। এক শিশুর শরীর ঝলসে গেছে। তাকে বার্ন ইউনিটে পাঠানো হয়েছে।

আহতরা হলেন- সোহেল (২৫), রিকশাচালক জুয়েল (৩০), জান্নাত (২৫), তানিয়া (৭), মীম (৭), বায়েজীদ (৯), অজুফা (৭), জমিলা (৭), সিয়াম (১১), অজানা (৭), মোস্তাকিম (৭), মোরসালিনা (৯), অর্নব/রাকিব(১০), জনি (৯) সহ আরও অনেকে।