ময়মনসিংহ সার্কিট হাউজ মাঠে দেয়াল উঠানো নিয়ে যোগাযোগ মধ্যমে সমালোচনার ঝঁড়

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, ময়মনসিংহ :
ময়মনসিংহের ইতিহাস-ঐতিহ্য ও সংস্কৃতির সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে আছে সার্কিট হাউস ময়দান। যার উন্মুক্ত বক্ষে রচিত হয়েছে ময়মনসিংহের অনেক ইতিহাস। এ জনপদের মানুষের সকল চাওয়া পাওয়া, আন্দোলন-সংগ্রাম ও উন্নয়নের ভিত রচিত হয়েছে এ মাঠ থেকেই। এই একটি মাত্র মাঠ যার এক প্রান্তে বহমান ব্রহ্মপুত্র নদ। নদীর তীর ঘেঁষে সবুজের অরণ্যে ছায়া ঘেরা এমন উন্মুক্ততা এ নগরীর আর কোথাও নেই। এমন উন্মুক্ত সৌন্দর্য দ্বিতীয়টি হয়তো সারাদেশেও খুঁজে পাওয়া যাবে না।

ময়মনসিংহ সার্কিট হাউজ ময়দানের উন্মুক্ত বিশালতা এখানকার মানুষের মনের অক্সিজেন হিসেবেই মূর্তিমান রয়েছে। সম্প্রতি এ বিশালতাকে দেয়ালে আবদ্ধ করে নান্দনিকতার একটি প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছে বলে জানা গেছে। এ খবরে ময়মনসিংহের জনমনে চলছে মিশ্র প্রতিক্রিয়া। ফেসবুকসসহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সার্কিট হাউজ ময়দানকে দেয়ালে আবদ্ধ করার সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আকুতি মাখা মন্তব্য চলছে। সেই সাথে সমালোচনার ঝঁড় উঠেছে।

ময়মনসিংহের কবি সাহিত্যিক ইয়াজদানী কোরাইশী তার ফেসবুক স্ট্যাটাসে লিখেছেন,”সার্কিট হাউস মাঠ নিয়ে কোন উচ্চাভিলাসী পরিকল্পনা জনমতের বিপক্ষে গেলে তা টিকবে না।”

ময়মনসিংহ জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও বর্তমান জেলা যুবলীগ সদস্য এবিএম আখতারুজ্জামান রবিন তার ফেসবুক ওয়ালে আবেগঘন ভাষায় লিখেছেন,”ময়মনসিংহ সার্কিট হাউজ মাঠ আমাদের ঐতিহ্য।আমাদের উদারতার প্রতীক,আমাদের বিশালতার প্রতীক। ময়মনসিংহবাসীর হাজার কষ্টের মাঝে এক চিলতে শান্তির জায়গা এই সার্কিট হাউজ মাঠ,মাঠের প্রাকৃতিক রূপ। দেয়াল তুলে ময়মনসিংহবাসীর শান্তির জায়গাকে অবরুদ্ধ করার সিদ্ধান্ত থেকে পিছিয়ে আসুন। আমাদের শান্তি গুলো কে,আমাদের ইচ্ছে গুলো কে সার্কিট হাউজ মাঠের বিশালতার মাঝে হারিয়ে যাওয়ার সুযোগ দিন।আমাদের নতুন প্রজন্ম কে এই প্রাকৃতিক পরিবেশে বেড়ে ওঠার সুযোগ দিন।
প্লিজ…”

ময়মনসিংহে দীর্ঘদিন যাবত সাংবাদিকতা পেশায় নিয়োজিত বয়োজ্যেষ্ঠ সাংবাদিক আব্দুল হাফিজ তার ফেসবুক আইডিতে লিখেছেন,”ময়মনসিংহ সার্কিট হাউস ময়দান হচ্ছে ময়মনসিংহের ইতিহাস ও ঐতিহ্যের ধারক বাহক। এই অঞ্চলের গর্ব এই ঐতিহ্যবাহি বিশাল ময়দানকে দেয়াল দিয়ে কেন ঘিরে ফেলার সিদ্ধান্ত নেওয়া হলো…?ঐতিহ্য নষ্টকারী এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে তীব্র ভাষায় জোর প্রতিবাদ জানাচ্ছি। রাষ্ট্রের টাকা ব্যয় করে মাঠের বিশালতাকে দেয়ালে বন্দী করার সিদ্ধান্তটি হটকারিতা মূলক কর্মকাণ্ড বলে প্রতীয়মান হচ্ছে। দেয়াল দিয়ে ইতিহাস ঐতিহ্যের উপর আঘাত হানা হলে ময়মনসিংহবাসী তা মেনে নিবে না।”

এদিকে দেয়ালসহ নানা উন্নয়নমূলক প্রস্তাবনার কথা জানিয়ে ময়মনসিংহ মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি ও ক্রীড়া সংগঠক এহতেশামুল আলম তার ফেসবুক ট্যাটাটে বলেছেন, “ময়মনসিংহ সার্কিট হাউজ মাঠকে সুরক্ষিত করতে এবং খেলোয়াড় ও দর্শকদের সুযোগ সুবিধা বৃদ্ধি করতে সার্কিট হাউজ মাঠকে কেন্দ্র করে নেয়া হয়েছে মেগা প্রকল্প। দর্শক ও খেলোয়াড়দের জন্য বসতে যাচ্ছে ছাউনি, মাঠের চারদিকে বসছে ওয়াকিং ওয়ে, রাতের আধার দূর করতে করা হচ্ছে আলোর ব্যবস্থা, গরু-ছাগল ও যত্রতত্র গাড়ি চলাচল বন্ধ করতে মাঠের চারদিকে দেয়া হবে তিন ফুট উচ্চতার দেয়াল এবং সর্বসাধারণের প্রবেশের জন্য মাঠের চারদিকে বসবে মোট আটটি গেইট।
এমন প্রকল্পের জন্য তিনি ধন্যবাদ জানিয়েছেন ময়মনসিংহের বিদায়ী বিভাগীয় কমিশনার খন্দকার মোস্তাফিজুর রহমান সাহেবকে।

তার সাথে সাথে অনেকের মনে ভ্রান্ত ধারণা আছে, দেয়াল দিয়ে মাঠকে জনসাধারণের কাছ থেকে পৃথক করা হচ্ছে। ব্যাপারটা আসলে তেমন নয়, মাঠ সর্বদা সকলের জন্য উন্মুক্ত থাকবে। যার যখন খুশি তখন মাঠে খেলার উদ্দেশ্যে অথবা হাটার উদ্দেশ্যে প্রবেশ করতে পারবে। তবে প্রশাসন যদি দেয়াল দিয়ে মাঠে সর্বসাধারণের প্রবেশাধিকার সংরক্ষিত করতে চায়, তাহলে আমি সবার আগে হাতুড়ি দিয়ে দেয়াল ভেঙ্গে সর্বসাধারণের জন্য মাঠ উন্মুক্ত করে দিবো ঈন-শা-আল্লাহ। অযথা ভান্ত্র ধারণা ও গুজব ছড়ানো থেকে বিরত থাকতে ও প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে সহযোগিতা করতে অনুরোধ জানান তিনি।

তবে তিন ফুট দেয়াল বেশি উচ্চতা মনে হলে সেটা আড়াই ফুট করে তার উপরে গ্রীল দেয়ার প্রস্তাব করা যেতে পারে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামীলীগ নেতা এহতেশামুল আলম।”

অন্যদিকে দেয়ালসহ নানা উন্নয়নমূলক প্রস্তাবনার কথা জানিয়ে ময়মনসিংহ মহানগর আওয়ামী লীগ সাধারন সম্পাদক মোহিত উর রহমান শান্ত নিজের ফেসবুক লাইক পেইজে লিখেছেন, একটা কাজে মানুষের একেক ইন্দ্রিয় একেক রকম সায় দেয় | মস্তিষ্ক রেখে কখনো কখনো হৃদয়ের কথা শুনতে হয় , বাস্তবতা রেখে আবেগের | আমি বিশ্বাস করি কর্তৃপক্ষ কোনো মহৎ উদ্দেশে আমাদের সার্কিট হাউস মাঠের চারদিকে দেয়াল নির্মাণের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। কিন্তু এই শহরের মানুষ যে এর উন্মুক্ত প্রান্তর কে আত্মস্থ করে রেখেছে , ব্রহ্মপুত্রের খোলা হাওয়া মেখে ক্রিকেট-ফুটবল খেলে ফেলেছে , জিমনাসিয়ামের সামনে দাঁড়িয়েই অনেক দূরের ব্রহ্মপুত্রের অবয়ব দেখতে পেয়েছে। তাই কোনো এক সকালে যদি এই মানুষগুলি দেখে মাঠটার চারদিকে দেয়াল, সেটা হবে তাদের আত্মতৃপ্তিকে বিভাজিত করার দেয়াল , চোখ ধরা সুন্দরকে বিভাজিত করার দেয়াল। তাই কতৃপক্ষকে সিদ্ধান্তটি পুনর্বার বিবেচনার জন্য অনুরোধ জানিয়েছেন এই নেতা।

সার্কিট হাউজ ময়দানকে দেয়ালে ঘেরার খবর প্রকাশের পর থেকেই ময়মনসিংহের বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার সাধারণ মানুষ ও সচেতন মহলে এ নিয়ে চলছে মিশ্র প্রতিক্রিয়া। তবে বেশিরভাগ মন্তব্য আসছে এই উদ্যোগের বিপরিতে। জনগণ তাদের নিজস্ব মন্তব্য জানাচ্ছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে। সেখানে ময়মনসিংহের প্রশাসন ও দায়িত্বশীলদের প্রতি আহ্বান জানানো হচ্ছে এ সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসার।