ময়মনসিংহ শিক্ষা বোর্ডের পাসের হার ৯৫ দশমিক ৭১ শতাংশ

78

অনলাইন ডেস্ক : এইচএসসি পরীক্ষায় ময়মনসিংহ শিক্ষা বোর্ডের পাসের হার ৯৫ দশমিক ৭১ শতাংশ; জিপিএ-৫ পেয়েছেন ৭ হাজার ৬৮৭ জন শিক্ষার্থী।
ময়মনসিংহ শিক্ষা বোর্ডের মধ্যে নেত্রকোনা জেলা সবচেয়ে ভাল ফলাফল করেছে পাশের হার ৯৬.৪৩ শতাংশ। জামালপুর জেলার পাশের হার ৯৫.৯৬ শতাংশ, ময়মনসিংহ জেলার পাশের হার ৯৫.৭০ শতাংশ এবং শেরপুর জেলার পাশের হার ৯৪.৩৪ শতাংশ।

ময়মনসিংহ শিক্ষা বোর্ডে পরীক্ষার্থী ছিল ৬৯ হাজার ২১৭ জন, এতে পাশ করেছে ৬৬ হাজার ২৫০ জন। মোট মেয়ে পরীক্ষার্থী ছিল ৩৫ হাজার ৫৪৯ জন মেয়েরা এগিয়ে), ছেলে পরীক্ষার্থী ৩৩ হাজার ৬৬৮ জন। মেয়ে জিপিএ-৫ পাপ্ত ৪ হাজার ১২৩ জন, ছেলে জিপিএ-৫ পাপ্ত ৩ হাজার ৫৬৪ জন।

২৭৫টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে শতভাগ পাশ করে করেছে ২৯টি প্রতিষ্ঠান। একটি প্রতিষ্ঠানে কোন শিক্ষার্থী পাশ করে নাই। ময়মনসিংহ শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মোঃ সামছুল ইসলাম প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এ তথ্য জানান।

এদিকে সারাদেশে নয়টি সাধারণ, মাদ্রাসা ও কারিগরি শিক্ষা বোর্ডে এ বছর উচ্চ মাধ্যমিক সার্টিফিকেট পরীক্ষায় (এইচএসসি) পাসের হার ৯৫ দশমিক ২৬ শতাংশ। এবার সর্বোচ্চ ফল বা জিপিএ-৫ অর্জন করা শিক্ষার্থীরা সংখ্যা ১ লাখ ৮৯ হাজার ১৬৯ জন।

রোববার সকালে ২০২১ সালের এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষার এই ফল ঘোষণা করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সকাল সাড়ে ১১টার দিকে গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি সংযুক্ত হয়ে তিনি ফল ঘোষণা করেন। ফল ঘোষণার আনুষ্ঠানিকতার মূল আয়োজনটি ছিল রাজধানীর সেগুনবাগিচার আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউটে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষে শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি নয়টি সাধারণ শিক্ষা বোর্ডে, মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ড ও কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যানদের কাছ থেকে এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল গ্রহণ করেন।

ফলাফলে জানা গেছে, ঢাকা শিক্ষা বোর্ডে পাসের হার ৯৬ দশমিক ২০ শতাংশ। জিপিএ-৫ পেয়েছেন ৫৯ হাজার ২৯৯ জন শিক্ষার্থী।

রাজশাহী বোর্ডের পাসের হার ৯৭ দশমিক ২৯ শতাংশ; জিপিএ-৫ পেয়েছেন ৩২ হাজার ৮০০ শিক্ষার্থী।
যশোর বোর্ডের পাসের হার ৯৮ দশমিক ১১ শতাংশ; জিপিএ-৫ পেয়েছেন ২০ হাজার ৮৭৮ জন শিক্ষার্থী।
দিনাজপুর বোর্ডের পাসের হার ৯২ দশমিক ৪৩ শতাংশ; জিপিএ-৫ পেয়েছেন ১৫ হাজার ৩৪৯ জন শিক্ষার্থী।

কুমিল্লা বোর্ডের পাসের হার ৯৭ দশমিক ৪৯ শতাংশ; জিপিএ-৫ পেয়েছেন ১৪ হাজার ১৫৩ জন শিক্ষার্থী।
চট্টগ্রাম বোর্ডের পাসের হার ৮৯ দশমিক ৩৯ শতাংশ; জিপিএ-৫ পেয়েছেন ১৩ হাজার ৭২০ জন শিক্ষার্থী।
সিলেট বোর্ডের পাসের হার ৯৪ দশমিক ৮০ শতাংশ; জিপিএ-৫ পেয়েছেন ৪ হাজার ৭৩১ জন শিক্ষার্থী।

বরিশাল বোর্ডের পাসের হার ৯৫ দশমিক ৭৬ শতাংশ; জিপিএ-৫ পেয়েছেন ৯ হাজার ৯৭১ জন শিক্ষার্থী।

এ ছাড়া মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডে পাসের হার ৯৫ দশমিক ৪৯ শতাংশ; জিপিএ-৫ পেয়েছেন ৪ হাজার ৮৭২ জন শিক্ষার্থী।
কারিগরি শিক্ষা বোর্ডে পাসের হার ৯২ দশমিক ৮৫ শতাংশ; জিপিএ-৫ পেয়েছেন ৫ হাজার ৭৭৫ জন শিক্ষার্থী।