ময়মনসিংহে শ্রমিক সংকটে কৃষক, ফসলের মাঠে ছাত্রলীগ

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, ময়মনসিংহ : সারাদেশে করোনা ভাইরাস সংক্রমনে কর্মহীন হয়ে পড়েছে সাধারন মানুষ। লকডাউন থাকায় অনেকেই ঘরের বাহিরে যেতেও ভয় পাচ্ছেন। অন্যদিকে ফসলের মাঠে কৃষকের আবাদ করা বুরো ধান পেকে আছে। কিন্তু শ্রমিক ও নগদ অর্থের সংকটে সেই ধান কাটতে হিমশিম খাচ্ছে বাংলার কৃষক। এমন সংকটময় সময়ে দরিদ্র কৃষকের পাশে দাঁড়িছে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের একদল তরুন স্বেচ্ছাসেবক। “কৃষক বাঁচলে বাঁচবে দেশ” বঙ্গবন্ধু ও শেখ হাসিনার বাংলাদেশ, এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে নিজ উদ্যোগে ময়মনসিংহে হতদরিদ্র কৃষকের ফসলের মাঠ থেকে ধান কেটে বাড়িতে পৌছে দিল তরুন ছাত্রলীগ নেতা কামরুল ইসলাম ও তার স্বেচ্ছাসেবক সহকর্মীরা।

গত শুক্রবার (২৪ এপ্রিল) শহরতলীর শিকারীকান্দা ও ফকিরাকান্দা এলাকায় সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত স্বেচ্ছায় প্রায় দুই একর জমির ধান কেটে দেন ছাত্রলীগের এই নেতাকর্মীরা।

জানা যায়, শহরতলীর শিকারীকান্দা এলাকায় করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগী থাকায় ও বৃষ্টির জন্য কৃষকের সেনালী পাকা ফসল পানির নিচে তলিয়ে যায়। এ নিয়ে স্থানীয় দরিদ্র কৃষকরা পড়েছে বিপাকে। পরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নির্দেশে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় ও সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য এর আহ্বানে চলমান মহামারী করোনা ভাইরাসের প্রাদুরভাবে কৃষি কাজের শ্রমিক সংকটময় সময়ে ময়মনসিংহ জেলা ছাত্রলীগের তরুণ নেতৃবৃন্দ এবং বিভিন্ন শাখা ছাত্রলীগের স্বেচ্ছাসেবকদের নিয় শহরতলীর শিকারীকান্দা ও ফকিরাকান্দা এলাকায় দুই কৃষকের প্রায় দুই একর জমির ধান কেটে বাড়িতে পৌছে দেন। তবে ছাত্রলীগের ধান কাটা এ কর্মসূচী অব্যাহত থাকবে বলে জানা গেছে।

এছাড়াও করোনা সংক্রমন মোকাবেলায় ছাত্রলীগ নেতা কামরুলের নেতৃত্বে নিজ এলাকার কর্মহীন ও হতদরিদ্র শতাধিক মানুষের মাঝে খাদ্য সামগ্রী, হ্যান্ড সেনিটাইজার, মাস্ক ও সাবান বিতরণ করা হয়েছে।