ময়মনসিংহে চিকিৎসককে মারধরের ঘটনায় যুবলীগ সভাপতি গ্রেফতার

ফারুক আহমেদ :
ময়মনসিংহের মুক্তাগাছা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কর্তব্যরত চিকিৎসককে মারধরের ঘটনায় উপজেলা যুবলীগের সভাপতি মাহবুবুল আলম মনিরকে মঙ্গলবার দিবাগত রাত একটার দিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এদিকে এ ঘটনায় বুধবার সকাল থেকে চিকিৎসকরা বিচারের দাবিতে কর্মবিরতিতে গেছেন বলে জানা যায়।
এ ঘটনায় মঙ্গলবার রাতে মাহবুবুল আলম মনিরকে আসামি করে ডা. এ এইচ এম সালেকিন বাদী হয়ে মামলা করেন।
বিষয়টি নিশ্চিত করে মুক্তাগাছা থানার ওসি দুলাল আকন্দ জানান, এ ঘটনায় মামলার পর মাহবুবুল আলম মনিরকে গ্রেফতার করা হয়েছে। মামলার নথির বরাত দিয়ে ওসি আরো জানান, মারধরের শিকার ডা. এ এইচ এম সালেকিন মামুন ইমারজেন্সিতে কর্মরত ছিলেন। এমতাবস্থায় দুপুর পৌনে ১টার দিকে হাসপাতালের হটলাইনে ফোন দিয়ে মুক্তাগাছা উপজেলা যুবলীগের সভাপতি মাহবুবুল আলম মনির পরিচয় দিয়ে এক ব্যক্তি তার বৃদ্ধ মায়ের করোনা পরীক্ষার জন্য বাসায় গিয়ে নমুনা নেয়ার ব্যাপারে জানতে চান। তখন ডা. সালেকিন জানান, যে বাসায় গিয়ে নমুনা নেয়া আপাতত বন্ধ ও তাকে তার মাকে হাসপাতালে নিয়ে এসে নমুনা দেয়াার পরামর্শ দেন।
এর কিছুক্ষণ পর দুপুর ২টার দিকে মাহবুবুল আলম মনির ও ৮-১০ জন মিলে হাসপাতালের ইমারজেন্সি মেডিকেল অফিসারের রুমে ঢুকে তাকে অকথ্য ভাষায় গালাগালি করেন ও বিভিন্ন হুমকি দেন। এরপর সবাই মিলে চিকিৎসককে মারধর করেন। এ সময় হাসপাতালের স্টাফরা তাদের বিরত করার চেষ্টা করেন।
এ বিষয়ে ময়মনসিংহ জেলা সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম জানান, মঙ্গলবার দুপুরে মাহবুবুল আলম মনির উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গিয়ে কর্তব্যরত চিকিৎসক মারধর করেন। এ ঘটনায় মামলা করা হয়েছে। এদিকে চিকিৎসকরা যেন কর্মবিরতি তুলে নেয় সেজন্য তাদের সঙ্গে আলোচনা করা হচ্ছে।