ময়মনসিংহের সেই মারুফ এবার আইএমওতে পেলেন ব্রোঞ্জপদক

ফারুক আহমেদ, ময়মনসিংহ :
এশীয়-প্রশান্ত মহাসাগরীয় গণিত অলিম্পিয়াডে প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে (এপিএমও) প্রথমবারের মতো স্বর্ণপদক জিতেছিলেন ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়া উপজেলার কৃতী সন্তান মারুফ হাসান রুবাব। এপিএমওতে বিশ্বজয় করলেও এবার প্রত্যাশা ঠিকমতো পূরণ হয়নি মারুফ হাসান রুবাবের। তবু প্রাণসংহারী করোনা মহামারির এ দুঃসময়ে ময়মনসিংহের ছেলে রুবাব এবার আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াড (আইএমও) থেকে পেলেন ব্রোঞ্জপদক।
মারুফ হাসান রুবাবসহ বাংলাদেশর তরুণ শিক্ষার্থীরা তিনটি ব্রোঞ্জপদক ও দুটি স্বীকৃতি পেয়েছে। রুবাব ফুলবাড়িয়া উপজেলার আছিম গ্রামের আবদুছ ছালাম ও শামীমা আক্তার দম্পতির ছেলে। বর্তমানে তারা ময়মনসিংহ নগরীর ফুলবাড়িয়া রোড বাই লেনের আকুয়া হাজীবাড়ী এলাকায় নিজ বাসা ‘ইশামা’য় স্থায়ীভাবে বসবাস করেন। মারুফ ময়মনসিংহের ঐতিহ্যবাহী আনন্দমোহন কলেজের এইচএসসি দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী। ছোটবেলা থেকেই বাবা তাকে নিরলসভাবে গণিতের রসালো আস্বাদ দেয়।
শুক্রবার আইএমও তাদের ওয়েবসাইটে পরীক্ষার ফল ঘোষণা করেছে। এ বছর ব্রোঞ্জপদক পেয়েছে ময়মনসিংহের মারুফ হাসান রুবাব ছাড়াও ঢাকার নটর ডেম কলেজের তাহমিদ হামীম চৌধুরী ও আদনান সাদিক। এছাড়া সম্মানজনক স্বীকৃতি পেয়েছে ভিকারুননিসা ন‚ন স্কুল অ্যান্ড কলেজের নুজহাত আহমেদ এবং আনন্দ মোহন কলেজের তাহজিব হোসেন খান। শিক্ষার্থীদের এ সাফল্যে অভিনন্দন জানিয়েছেন বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটির সহ-সভাপতি অধ্যাপক মুহম্মদ জাফর ইকবাল।
গণিত অলিম্পিয়াডে প্রতিটি দেশ থেকে ছয় প্রতিযোগী অংশ নেয়। প্রত্যেককে ৪২ নম্বরের পরীক্ষায় অংশ নিতে হয়। বিশ্বজুড়ে করোনা সংক্রমণের কারণে এ বছর ৬২তম আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াডের (আইএমও) প্রতিযোগিতা হয়েছে ভার্চুয়ালি। এবারের আয়োজক দেশ রাশিয়া। গত বছরও গণিত অলিম্পিয়াডের আয়োজন রাশিয়া থেকে ভার্চুযালি হয়েছে। গত বছর ৬১তম আইএমওতে বাংলাদেশ একটি রুপার পদক ও পাঁচ ব্রোঞ্জপদক পেয়েছিল। আর ১১৮ নম্বর পেয়ে ১০৭ দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ছিল ৩৮তম।
অন্যদিকে এ বছর ৬৮ নম্বর পেয়ে বাংলাদেশ ১০৭ দেশের মধ্যে ৪৩তম স্থান অধিকার করেছে। এবারের প্রতিযোগিতায় ভারত ২৬তম, শ্রীলঙ্কা ৮১তম, নেপাল ৯১তম ও পাকিস্তান ১০৩তম স্থান অধিকার করেছে।
মারুফ হাসান রুবাব জানান, এর আগে ২০১৮ সালে গণিত অলিম্পিয়াডে প্রথমবারের মতো স্বর্ণপদক জিতেছিল বাংলাদেশের শিক্ষার্থী আহমেদ জাওয়াদ চৌধুরী। ১৯ ও ২০ জুলাই বাংলাদেশ দলের ছয় শিক্ষার্থী ঢাকা, ময়মনসিংহ, কুষ্টিয়া ও দিলি­ থেকে অলিম্পিয়াডে ভার্চুযাল পরীক্ষায় অংশ নেন। এ বছর দলীয়ভাবে ২৫২ নম্বরের মধ্যে ২০৮ নম্বর এবং ছয়টি সোনার পদক পেয়ে নিজেদের শ্রেষ্ঠত্ব ধরে রেখেছে চীন। রাশিয়া ও দক্ষিণ কোরিয়া যথাক্রমে দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্থান অধিকার করেছে।

মারুফ হাসান রুবাবের বাবা আবদুছ ছালাম বলেন, ‘এপিএমওতে স্বর্ণপদক জিতে বিশ্বজয় করলেও আইএমওতে আশানুরূপ ফল করতে না পারলেও ছেলেকে নিয়ে আমি গর্বিত। তার গণিত চর্চার হাতেখড়ি আমার কাছেই। ছোটবেলা থেকেই গণিতে তার আকর্ষণ।’