মৌবাড়ীয়ার ৯৩নং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের খোলা আকাশের নিচে চলছে পাঠদান।

কুষ্টিয়া: কুষ্টিয়ার দৌলতপুরের খলিসাকুন্ডি ইউনিয়নের মৌবাড়ীয়ার ৯৩নং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মূল ভবনটি ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ায় খোলা আকাশের নিচে চলছে পাঠদান। স্কুল কর্তৃপক্ষ বলছে, বিকল্প না থাকায় বাধ্য হয়েই খোলা মাঠে চলছে পাঠদান কার্যক্রম। আর শিক্ষা কার্যক্রম ব্যাহত হওয়ায় শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি কমছে। মৌবাড়ীয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টিতে একতলা দু’টি ভবনে ৭টি কক্ষ নিয়ে চলছিল ক্লাস ও লাইব্রেরির কার্যক্রম।

এর মধ্যে ৫ কক্ষের মূল ভবনটি দীর্ঘদিন ধরে ছিল ঝুঁকিপূর্ণ। এরমধ্যে গত (৪ ফেব্রুয়ারী২০১৯) হঠাৎ ভবনটির ছাদের চুন-সুরকি খসে পড়ার সাথে সাথে বড় ধরনের ফাটল দেখা দেয়ায় ভবনটিকে পরিত্যক্ত ঘোষণা করা হয়। ফলে পর্যাপ্ত শ্রেণীকক্ষের অভাবে খোলা আকাশের নিচে চলছে শিক্ষার্থীদের পাঠদান কার্যক্রম। এ অবস্থায় শিক্ষকরা বলছেন, ভবন সঙ্কটে মারাত্মকভাবে ব্যাহত হচ্ছে শিক্ষা কার্যক্রম।

ঐ ভবনে পাঠদান করলে যে কোন মুহুর্তে ছোট ছোট দুর্ঘটনার পাশাপাশি বড় ধরনের দুর্ঘটনার আশংক রয়েছে। এলাকাবাসি জানায়,১৯৫৮সালে নির্মান করা ভবনটি অত্যান্ত বেহালদশা। ভবনে একাধিক স্থানে ছোট-বড় ফাটল ধরেছে। ছাদের বিভিন্ন জায়গা থেকে প্লাষ্টার খসে পড়ছে। দেয়াল ও ফ্লোর স্যাত স্যাতে অবস্থা বিরাজ করছে। বিদ্যালয়ের অবকাঠামো অবস্থা খুবই নাজুক। এখানে নেই পর্যপ্ত পরিমান চেয়ার, বেঞ্চ ও টেবিল।

এদিকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শারমিন আক্তার ঝুকিপূর্ন স্কুলের ভবনটি পরির্দশন শেষে নতুন ভবন নির্মান জন্য জোর চেষ্টা করবেন বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন। এব্যাপারে মৌবাড়ীয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি বীরমুক্তিযুদ্ধা মোহাঃ আলাউদ্দিন জানান, বিদ্যালয়টি দীর্ঘদিন ধরে ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ায় কর্তৃপক্ষের নিকট বার বার পত্র দেওয়ার পরেও আজ অবধি কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি। ফলে বিদ্যালয়ের ক্লাস রুম ছেড়ে খোলা আকাশের নিচে চলছে শিক্ষার্থীদের লেখা-পড়া। এ অবস্থা চলতে থাকলে বৃষ্টিবাদলের দিনে কোমলমতি শিক্ষার্থীদের পাঠদান বন্ধ রাখা ছাড়া আর কোন পথ নেই।