মুজিব বর্ষে লার্নিং অ্যান্ড আর্নিং প্রজেক্টে ১০ কোটি মানুষ সুবিধা পাবে

মুজিব বর্ষে লার্নিং অ্যান্ড আর্নিং প্রজেক্টে ১০ কোটি মানুষ সুবিধা পাবে।

মুজিব বর্ষে লার্নিং অ্যান্ড আর্নিং প্রজেক্টে একশ সার্ভিসের মাধ্যমে ১০ কোটি মানুষ সুবিধা পাবে বলে জানিয়েছেন ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক।
কুড়িগ্রামের বিলুপ্ত ছিটমহল দাসিয়ারছড়ায় শুক্রবার দাসিয়ারছড়া বহুমুখী মাধ্যমিক বিদ্যালয় মাঠে নির্মাণাধীন ডিজিটাল সার্ভিস ইমপ্লয়মেন্ট অ্যান্ড ট্রেনিং সেন্টারের ভিত্তিপ্রস্তর উদ্বোধনকালে প্রতিমন্ত্রী এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘এ বছরে প্রধানমন্ত্রীর নতুন উপহার স্টার্ট অব বাংলাদেশ। যেখানে তরুণরা চাকরি না খুঁজে চাকরি দেবে। উদ্যোক্তা সৃষ্টি করবে।’
প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, ৬৮ বছরের পিছিয়ে থাকা ছিটমহলের মানুষদের আইসিটি বিষয়ে প্রশিক্ষণ ও কর্মসংস্থানের জন্য এ ট্রেনিং সেন্টার মুজিব বর্ষে উপহার দেয়া হলো।
তিনি বলেন, মুজিব বর্ষে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়ার লক্ষ্যে প্রযুক্তি নির্ভর বাংলাদেশের স্বপ্ন বাস্তবায়নে ৪০ হাজার তরুণকে প্রশিক্ষণ দেয়া হবে। এর মধ্যে কুড়িগ্রামে ৫০০ জন তরুণ লার্নিং অ্যান্ড আর্নিং ডেভেলপমেন্টের আওতায় প্রশিক্ষণ পাবে।
‘আমাদের আইসিটি সেক্টরে ১০ লাখ তরুণ-তরুণী কর্মসংস্থান পেয়েছে। ইতোমধ্যে ৬ লাখ ফ্রিল্যান্সার কাজ করছে। সেই সাথে প্রায় ২ লাখ সফটওয়্যার টেকনোলজিতে কাজ করছে। লক্ষাধিক ছেলে-মেয়ে কল সার্ভিসে কাজ করছে। ৫০ হাজারেরও বেশি ছেলে-মেয়ে ই-কমার্সে কাজ করছে, ‘ যোগ করেন পলক।
এসময় ফুলবাড়ী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাসুমা আরেফীনের সভাপতিত্বে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট জিলুফা সুলতানা, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মেনহাজুল আলম, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো. জাফর আলী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।