মাহমুদউল্লাহর নেতৃত্বে খেলবেন মাশরাফি-তামিম

75

স্পোর্টস ডেস্ক : বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ (বিপিএল) মানেই মাশরাফি বিন মুর্তজার রাজত্ব। বিপিএলের সাত আসরের চারটিই শিরোপা গেছে তার হাতে। তার নেতৃত্বে ঢাকা দুইবার এবং কুমিল্লা ও রংপুর একবার করে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে।

তামিম ইকবালও পিছিয়ে নেই। নেতৃত্বে না থাকলে ফ্র্যাঞ্চাইজিভিত্তিক এই প্রতিযোগিতায় তার পরিকল্পনায় কুমিল্লা শিরোপা জিতেছিল। সেখানে পিছিয়ে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। বিপিএলে এখনও শিরোপা ছোঁয়া হয়নি তার। ফাইনাল খেললেও একটুর জন্য শিরোপার নাগাল পাননি।

তবে অধিনায়ক রিয়াদের হাত ধরে বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপে শিরোপা জিতেছিল জেমকন খুলনা। দেশের ক্রিকেটের তিন ধ্রুবতারা নেতৃত্বেও ঊনিশ-বিশ। তবে তিনজন একই সঙ্গে থাকলে কে থাকবেন অধিনায়ক? বিপিএলের এবারের দল ঢাকার নিশ্চয়ই অধিনায়ক নির্বাচনে মাথার ঘাম পায়ে ফেলতে হয়েছে? দীর্ঘ অপেক্ষার পর তারা ঘোষণা করলেন, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদই ঢাকার অধিনায়ক। জাতীয় দলের টি-টোয়েন্টি অধিনায়কের ওপরই তারা আস্থা রাখছেন।

সোমবার দলের জার্সি উন্মোচন অনুষ্ঠানে অধিনায়কের নামও ঘোষণা করে ফ্র্যাঞ্চাইজিটি। বিপিএলের প্লেয়ার্স ড্রাফটে চমক দিয়েছিল ঢাকা। প্লেয়ার্স ড্রাফটের আগের রাতে দলের মালিকানা নিয়ে ছিল টানাপোড়েন। অথচ তারাই কিনা দলে ভেড়ায় তামিম, মাহমুদউল্লাহ ও মাশরাফিকে। মাহমুদউল্লাহকে সরাসরি সাইন করানোর পর তামিমকে প্রথম ডাকে এবং মাশরাফিকে তৃতীয় ডাকে দলে নেয় ঢাকা।

তিন ক্রিকেটারের জন্য ২ কোটি ১০ লাখ টাকা খরচ করেছে ঢাকা। মাশরাফি বিপিএলে এর আগে আশরাফুল ও সাকিবকে সতীর্থ হিসেবে পেয়েছেন। আবার বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপে মাশরাফির সতীর্থ ছিলেন সাকিব ও মাহমুদউল্লাহ। বিপিএলে ঢাকা প্লাটুনে সতীর্থ ছিলেন তামিম ও মাশরাফি। এবার তামিম, মাশরাফি ও মাহমুদউল্লাহ প্রথমবার খেলবেন একই জার্সিতে।

ত্রয়ীর রসায়নে ঢাকা নিশ্চিতভাবে এগিয়ে। তাদেরকে চ্যাম্পিয়ন হিসেবেও দেখছেন অনেকে।