মানবতার প্রতীক ত্রিশালের ওসি মাইন উদ্দিন

কামরুজ্জামান মিনহাজ ঃ
ময়মনসিংহের ত্রিশাল থানার সুযোগ্য অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মাইন উদ্দিন পুলিশের পোশাকের বাহিরে একজন সাদা মনের মানুষ ও মানবতার প্রতীক একজন পুলিশ অফিসার। মানবিক এই অফিসার সর্বদাই খুঁজে বেড়ায় সমাজের অসহায় অবহেলিত মানুষগুলোকে।

অসহায়ত্বের ছোবলে আক্রান্ত হয়ে মৃত প্রায় ক্ষত-বিক্ষত দেহাবশেষ বাঁচিয়ে রাখার তাগিদে ক্ষুধা নিবারন কিংবা সংসারের হাল ধরার দায়িত্ব থেকে পিঁছু হটতে পারেনি এই পথশিশু। এক পায়ে ভর করে হাটতে হবে বহুদূর ক্লান্তিহীন এ মানুষগুলোর চোখে মুখে জ্বলজ্বল পিতার অবর্তমানে মা-বোনের দায়িত্ব যে নিতেই হবে। একটি পা সড়ক দূর্ঘটনায় বিচ্ছিন্ন হলেও বাকি আরেকটা পা দিয়ে পরিবারের জন্য সমাজের দু-পা ওয়ালা মানুষের কাছে সাহায্যের দূর্বল হাত বাড়াতে হয়।

শনিবার (৩১জুলাই ২০২১) ভাগ্য বিড়ম্বনায় ভিক্ষাবৃত্তি যার বর্তমান পেশা ভিক্ষার ছলে ভয়ে-ভয়ে শক্ত ভারী কাঠের ক্রেচারে ভর করে থানার গোলঘরে সেখানে বেশ কয়েকজন সাংবাদিক সহ ওসি মাইন উদ্দিন বসে আছেন। শিশুটিকে দেখে আঁতকে উঠলেন ওসি মাইন উদ্দিন। কাছে ডেকে নিয়ে জানতে চাইলেন কিভাবে কি ঘটলো, পরিবারে কে কে আছেন? উত্তরে জানায় সড়ক দূর্ঘটনায় পা হারাবার গল্প আর পিতার মৃত্যুর পর মা আর বড় তিন বোনকে নিয়ে তার অস্বচ্ছল সংসারের করুন কাহিনী। লক্ষ্য করলেন কাঠের ক্রেচারটি অনেক ভারী সঙ্গে সঙ্গে দেখিয়ে দিল ক্ষত চিহ্নখানি। ওসি মাইন উদ্দিন কিংকর্তব্যবিমুর খানিকক্ষন নিশ্চুপ। পকেট থেকে ১ হাজার টাকার একটা নোট বের করে দিয়ে বললেন -“এটা দিয়ে তো তোর অনেক কষ্ট হয় ” আমি তোর জন্যে হালকা দেখে এ্যালোমিনিয়ামের একটা ক্রেচার আনিয়ে রাখবো তুই আগামীকাল রবিবার (১লা আগষ্ট ২০২১) আয়। এভাবেই সমাজের অবহেলিত মানুষের জন্য নিরবে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে থাকেন ত্রিশালের মানবিকতায় বিরল ওসি মাইন উদ্দিন।