বঙ্গবন্ধুকে ডক্টরেট ডিগ্রি দেবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

নিজের সাবেক ছাত্র শেখ মুজিবুর রহমানকে সম্মানসূচক ডক্টর অব লজ ডিগ্রি প্রদান করবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। শনিবার বিশ্ববিদ্যালয়ের ৫২তম সমাবর্তন উপলক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের একথা জানান উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো আখতারুজ্জামান।

তিনি বলেন, আসলে আনুষ্ঠানিকভাবে বলা না হলেও সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। মুজিব বর্ষে অর্থাৎ ২০২০ সালে আমরা বঙ্গবন্ধুকে এ ডিগ্রি প্রদান করার পরিকল্পনা হাতে নিয়েছি। রাষ্ট্রপতি এ বিষয়ে চূড়ান্ত ঘোষণা দেবেন। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু যেহেতু ল’র শিক্ষার্থী ছিলেন। তাই তাকে ডক্টর অব লজ ডিগ্রি প্রদান করা হবে। এছাড়া আমাদের ডক্টর অব সায়েন্স, ডক্টর অব লিটারেচার (ডি-লিট) সহ ইত্যাদি ডিগ্রি রয়েছে।

প্রসঙ্গত, শেখ মুজিবুর রহমান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের ছাত্র ছিলেন। ১৯৪৯ সালে আইন বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষে পড়াকালে তাকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিস্কার করা হয়েছিল। চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারীদের একটি আন্দোলনে নেতৃত্ব দেয়ার অভিযোগে তাকেসহ আরো চারজনের বিরুদ্ধে কর্তৃপক্ষ বহিস্কারের সিদ্ধান্ত নিয়েছিল। তবে বলা হয়েছিল, ১৫ রুপি জরিমানা এবং পরিবারের মাধ্যমে মুচলেকা দিলে তারা ছাত্রত্ব ফিরে পাবেন।

শেখ মুজিব ছাড়া বহিস্কারাদেশ পাওয়া অন্য চারজন ছিলেন কল্যাণ চন্দ্র দাশগুপ্ত, নাঈমউদ্দিন আহমেদ, নাদেরা বেগম এবং আবদুল ওয়াদুদ। তারা সবাই জরিমানা ও মুচলেকা দিয়ে ছাত্রত্ব ফিরিয়ে নিলেও শেখ মুজিব মুচলেকা ও জরিমানা দিয়ে ছাত্রত্ব গ্রহণ করেননি। ওই ঘটনার দীর্ঘ ৬১ বছর পর ২০১০ সালের ১৪ আগস্ট ঢাকা বিশ্ববিদ্যলয় কর্তৃপক্ষ শেখ মুজিবুর রহমানের ছাত্রত্ব বাতিলের আদেশটি প্রত্যাহার করে নেয়।

বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা রাষ্ট্রপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট সামরিক বাহিনীর বিপথগামী কিছু সদস্যের হাতে সপরিবারের নিহত হন। শেখ মুজিবুর রহমানের পরিবারের কেবল দু’জন সদস্য তখন বেঁচে ছিলেন। তারা হলেন, বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং তার বোন শেখ রেহানা।

তাই ৪৩ বছর আগে মারা যাওয়া শেখ মুজিবুর রহমানকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে দেয়া এই ডি-লিট ডিগ্রির কোনো ব্যবহারিক মূল্য নেই। তবে এই ডিগ্রি প্রদানের মাধ্যমে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় তার সাবেক ছাত্র শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা প্রকাশ করতে যাচ্ছে বলে মনে করা হচ্ছে।