ফুলপুর ও ধোবাউড়া উপজেলার ৭ বীরাঙ্গনা পাচ্ছেন মাসিক ভাতা

মোঃ খলিলুর রহমান, বিশেষ প্রতিনিধিঃ
স্বাধীনতার ৫০ বছরেও স্বীকৃতি না পাওয়া ফুলপুরের সুরবালা সিংসহ ফুলপুর ও ধোবাউড়া উপজেলার ৭ বীরাঙ্গনাকে মাসিক ভাতা দিচ্ছে নারীপক্ষ নামে একটি বেসরকারী সংগঠন।

মঙ্গলবার তাদের নিজ নিজ ব্যাংক হিসাব ও মোবাইল ব্যাংকিং মাধ্যমে ভাতার টাকা পৌছে দেয়া হয়েছে বলে জানান মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক গবেষক ও ফুলপুর সাংবাদিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক এ টি এম রবিউল করিম।

সাংবাদিক এ টি এম রবিউল করিম আরো জানান এ ৭ বীরমাতা বীরাঙ্গনা এখন থেকে নিয়মিত প্রতিমাসে ২ হাজার টাকা করে ভাতা পাবেন। ভাতা প্রাপ্তির খবরে বীরাঙ্গনা ও তাঁদের পরিবার দারুণ খুশি। শেষ বয়সে আর কিছু না হোক অন্তত চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়েছে। সরকারী স্বীকৃতি না হোক বেসরকারী হয়েছে, তাতে তাঁরা আশার বীজ বপন করতে পারছেন বলে বীরমাতা বীরাঙ্গনারা জানান। বীরমাতা বীরাঙ্গনাদের দাবী, যে দেশের জন্য আমরা আমাদের নারী জীবনের অমূল্য সম্পদ হারিয়েছি, সে দেশ আমাদের হারানোর স্বীকৃতিটা অন্তত দিক। আমাদের ভাতার চাইতে স্বীকৃতির প্রয়োজন বেশী। কারণ পাক-হানাদার বাহিনীর অপকর্মের শিকার আমরা। তাঁরা (বীরাঙ্গনা) যেন জীবন সায়েহ্নে সরকারী স্বীকৃতিটা দেখে যেতে পারেন সে আশা করেন।

ভাতা প্রাপ্তরা হলেন সুফিয়া খাতুন (ফুলপুর), সুরবালা রাণী ওরফে সুরবালা সিং ( ফুলপুর), শহর বানু (ফুলপুর), হালিমা খাতুন (ফুলপুর), সকিনা খাতুন (ধোবাউড়া), জেলেকা খাতুন (ধোবাউড়া) ও আমেনা খাতুন (ধোবাউড়া)।নারীপক্ষ তাঁদের জন্য বিনামূল্যে চিকিৎসার ব্যবস্থা করেছে বলেও জানা যায়।
উল্লেখ্য, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক গবেষক সাংবাদিক এ টি এম রবিউল করিম নারীপক্ষের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করে এ ভাতার ব্যবস্থা করেন।