ফুলপুরে কা‌লোবাজা‌রে বি‌ক্রি করা খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির ৮৯ বস্তা চাল জব্দ, থানায় মামলা

মোঃ খলিলুর রহমান, বিশেষ প্রতিনিধিঃ
ময়মনসিংহের ফুলপুরে ‘শেখ হাসিনার বাংলাদেশ, ক্ষুধা হবে নিরুদ্দেশ’ প্রকল্পের আওতাধীন ১০ টাকা কেজির প্রধানমন্ত্রীর খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির কা‌লোবাজা‌রে বি‌ক্রি করা ৮৯ বস্তা চাল জব্দ করা হয়েছে। সোমবার রাতে উপজেলার সিংহেশ্বর উচ্চ বিদ্যালয় সংলগ্ন সিংহেশ্বর বাজারে মো. শহিদুল ইসলাম শহিদের দোকান থেকে এসব চাল জব্দ করা হয়। শহিদুল ইসলাম উপজেলার সিংহেশ্বর (ভাটপাড়া) গ্রামের মৃত শামছুল হকের পুত্র। শহিদুল ইসলাম প্রধানমন্ত্রীর খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির ডিলার না হযেও এত চাল কোথায় পেয়েছে তা নিয়েও জনমনে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।

জানা যায, ফুলপুর উপজেলার সিংহেশ্বর ইউনিয়নের সিংহেশ্বর বাজারের একটি দোকানে শহিদুল ইসলাম শহিদ (৩৫)সহ অজ্ঞাত ৫/৬ জন যোগসাজসে ১০ টাকা কেজি’র প্রধানমন্ত্রীর খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির বেশ কিছু চাউলের বস্তা মজুদ করে রেখেছে এমন গোপন সংবাদের ভিত্তিতে পুলিশ এবং খাদ্য বিভাগের কর্মকর্তাগণ সোমবার রাত পৌনে ৮ টায় সিংহেশ্বর বাজারে অভিযান চালায়। এসময় শহিদুল ইসলাম শহিদের দোকান ঘরের দরজা খুলিয়া ভিতরে প্রবেশ করে প্রধানমন্ত্রীর খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির ৮৯ বস্তা সরকারি চাল দেখতে পেয়ে তা জব্দ করে থানায় নিয়ে আসেন। এর মাঝে ৩০ কেজির ৭৫ বস্তা ও ১৪ বস্তায় ১৭ কেজি করে চাল রয়েছে বলে জানা যায়।এ ব্যাপারে উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রকের কার্যালয়ের অফিস সহকারী রুনা আক্তার বাদী হয়ে মঙ্গলবার দোকান মালিক শহিদুল ইসলাম শহিদসহ অজ্ঞাত নামা ৫/৬ জনের বিরুদ্ধে ফুলপুর থানায় ১৯৭৪ সালের বিশেষ ক্ষমতা আইনের ২৫(১)/২৫-D ধারায় মামলা (নং ০৮) দায়ের করেছেন। দোকান মালিক কালোবাজারী শহিদ বর্তমানে পলাতক রয়েছে। মামলাটি তদন্ত করবেন এসআই মোস্তাক আহমেদ।

উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক মোহাম্মদ রাশেদ হাসান এ বিষয়ে বলেন, শহিদ একজন দোকানদার ও ফরিয়া ব্যবসায়ী। সে কোন ডিলার নয়।আমরা তার বিরুদ্ধে মামলার মামলা করেছি।

ফুলপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার শীতেষ চন্দ্র সরকার চাল জব্দের ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, আড়াই টন চাল জব্দ করে থানায় রাখা হয়েছে। যার দোকান থেকে এসব চাল জব্দ করা হয়েছে তার বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে।

ফুলপুর থানার ওসি আব্দুল্লাহ আল মামুন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, এ বিষয়ে একটি মামলা হয়েছে। আসামী গ্রেফতারে চেষ্টা চলছে।