ফুলপুরে অতিরিক্ত ভাড়ার ফাঁদে যাত্রীরা, ঝুকি নিয়ে যাচ্ছে কর্মস্থলে

  মোঃ খলিলুর রহমান, বিশেষ প্রতিনিধিঃ
প্রিয়জনদের সাথে ঈদ উদযাপন শেষে ময়মনসিংহের ফুলপুর ও আশ-পাশের এলাকা থেকে রাজধানী ঢাকায় ফেরা শুরু করেছেন কর্মজীবী মানুষ। বিশেষ করে সরকারি-বেসরকারি  প্রতিষ্ঠানে কর্মরতরা রোববার থেকে কর্মস্থলে যোগ দিতে ঢাকায় যাচ্ছেন। যে গতিতে তারা ঘরে ফেরেন, ঠিক সেই গতিতে ফিরছেন কর্মস্থলে। মহাসড়কগুলোতে গাড়ির চাপ বেড়েছে। আইনশৃঙ্খলাবাহিনীর শিথিলতার সুযোগ নিয়ে মহাসড়কগুলোতে দূরপাল্লার বাসও চলছে যাত্রী নিয়ে।

আজ মঙ্গলবার ফুলপুর বাসষ্ট্যান্ডে গিয়ে দেখা যায় মানুষের চাপ অনেক। তাদের সাথে কথা বলে জানা যায়,তারা বেশির ভাগই কর্মজীবী। কর্মস্থলে ফিরতে অতিরিক্ত ভাড়ার ফাঁদে পরেছেন যাত্রীরা। গাড়ীগুলো অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করায় এবারও কর্মস্থলে ফেরা যাত্রীদের চরম ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে। ঈদের আগে ও পরে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করা হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন যাত্রীরা। যাত্রীদের সাথে কথা বলে জানা যায়, ফুলপুর থেকে গাজিপুর চৌরাস্তা পর্যন্ত বাসে ৪০০/৫০০ টাকা ভাড়া নেয়া হচ্ছে। আর সিএনজি অটোরিকসা যেখানে ফুলপুর থেকে ময়মনসিংহে ভাড়া ছিল ৫০ টাকা সেখানে এখন নেয়া হচ্ছে ২০০ টাকা। এই অতিরিক্ত ভাড়ার কারণে অনেকেই জীবণের ঝুকি নিয়ে গাদাগাদি করে পিকআপ ও ট্রাকে করে ২৫০ টাকা ভাড়া দিয়ে টঙ্গি ও গাজিপুর চৌরাস্তা পর্যন্ত যাচ্ছেন। ফুলপুর বাস টার্মিনালে কর্মস্থলে ফেরা  মানুষের চাপ বেশি থাকায় বিভিন্ন রোডের গাড়ি এখানে এসেছে। বাস, মাইক্রোবাস, প্রাইভেটকার, পিকআপ ও ট্রাকে গাদাগাদি করে যাত্রী নেয়া হচ্ছে। এখানে স্বাস্থ্যবিধির কোন বালাই নেই। অনেকেই মাস্ক পর্যন্ত ব্যাবহার করছে না।

শামীম নামে এক যাত্রী অভিযোগ করে বলেন,ঈদে বাড়ি যাওয়ার মতই ঢাকায় ফিরতে বেশি ভাড়া গুনতে হচ্ছে। ফুলপুর থেকে গাজিপুর চৌরাস্তা ২০০ টাকা বাস ভাড়ার জায়গায় এখন নেয়া হচ্ছে ৪০০/৫০০ টাকা।

যাত্রী জাহাঙ্গীর আলম অভিযোগ করে বলেন, ফুলপুর থেকে গাজিপুর চৌরাস্তা পর্যন্ত বাস, মাইক্রোবাস, প্রাইভেটকার, পিকআপ ও ট্রাক সিন্ডিকেট করে গাড়ির ভাড়া বাড়ানো হয়েছে। অতিরিক্ত ভাড়া দিয়েও কোন সেবা নেই। যাত্রীদের জিম্মি করে সিন্ডিকেট অতিরিক্ত ভাড়া নিলেও দেখার কেউ নেই।