ফুলপুরের খাদ্য কর্মকর্তা কামালকে প্রাণনাশের হুমকি! দূর্নীতির অভিযোগ মিথ্যা দাবি

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, ময়মনসিংহ ২৬ ফেব্রুয়ারি :
ময়মনসিংহের ফুলপুর উপজেলা খাদ্য গুদামের কর্মকর্তা মাজহারুল ইসলাম কামালের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ মিথ্যা প্রমানীত হয়েছে বলে দাবি করেছেন তিনি। তদন্ত কমিটি তার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগের কোন সত্যতা পাননি বলে জানিয়েছেন খাদ্য কর্মকর্তা কামাল।

এদিকে খাদ্য কর্মকর্তার বিরুদ্ধে অভিযোগকারী
ফুলপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক জহিরুল ইসলাম দ্বারা প্রাণনাশের হুমকি দিয়েছেন বলে খাদ্য কর্মকর্তা মাজহারুল ইসলাম কামাল অভিযোগ করেছেন।

জানা গেছে, জহিরুল ইসলাম নামের এক আওয়ামী লীগ নেতা অভিযোগ করেন, বউলা সোনালি ব্যাংক থেকে ২৩ কৃষকের বিল উত্তোলন করে আত্মসাৎ ও নিয়ম না মেনে ধান ক্রয় করেছে ফুলপুর খাদ্য কর্মকর্তা মাজহারুল ইসলাম কামাল। এ অভিযোগের ভিত্তিতে নেত্রকোনা জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক সুরাইয়া খাতুনকে প্রধান করে তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। পরে গত ২৪ ফেব্রুয়ারি তদন্ত কমিটি ফুলপুর উপজেলা পরিষদে অভিযোগকারী ও খাদ্য কর্মকর্তাকে ডাকেন। সেখানে প্রায় ২শ কৃষক স্বাক্ষী দেয় নিয়ম মেনেই ধান ক্রয় করা হয়েছে। একই সাথে ব্যাংক থেকে কৃষকের বিলের টাকা উত্তোলনের বিষয়টিও মিথ্যা বলে নিশ্চিত করেছেন বলেও জানান অভিযুক্ত খাদ্য কর্মকর্তা।

তিনি আরও জানান, অভিযোগকারী তদন্ত কমিটিকে আরও অভিযোগ করেন, গত বোর মৌসুমে নিয়ম না মেনে একরাতে ৫শ টন ধান ক্রয় করে অভিযুক্ত খাদ্য কর্মকর্তা। এমন অভিযোগে খাদ্য নিয়ন্ত্রক সুরাইয়া খাতুন তাৎক্ষণিক আবার খাদ্য গুদামে যান। এবং গুদামের খাতা, সেন্ট্রাল লেজার, গল পরিক্ষা করে প্রমান পান নিয়ম মেনে ৫ দিনে ৫ শ টন ধান ক্রয় করা হয়েছে। তিনি সব প্রমানাধি সাথে করে নিয়ে যান। এক্ষেত্রে এ অভিযোগটিও মিথ্যা বলে প্রমানিত হয় বলে জানান খাদ্য কর্মকর্তা।

এ বিষয়ে জানতে তদন্ত কর্মকর্তা নেত্রকোনা জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক সুরাইয়া খাতুন তদন্ত সম্পর্কে কোন কিছু বলতে রাজি হননি। তিনি বলেন, আমি সবেমাত্র তদন্ত শেষ করে এসেছি এখনি কিছু বলতে পারছিনা। আগে তদন্ত প্রতিবেদন তৈরি করি, পরে সব জানাতে পারবো।

অভিযুক্ত খাদ্য কর্মকর্তা মাজহারুল ইসলাম কামাল বলেন, আমার বিরুদ্ধে আনিত সব অভিযোগ মিথ্যা প্রমানিত হয়েছে। আমার পক্ষে শত শত কৃষক স্বাক্ষী দিয়েছেন। তিনি বলেন, ময়মনসিংহ খাদ্য বিভাগের কিছু অসাধু কর্মকর্তা আমাকে হেয়প্রতিপন্ন করতে মিথ্যা, অসত্য ষড়যন্ত্রমুলক বানোয়াট অভিযোগ করিয়েছে। যারা সম্প্রতি বিভিন্ন অনিয়মের দায়ে ময়মনসিংহ থেকে বিতাড়িত হয়েছে।

কামাল আরও বলেন, অভিযোগকারী আওয়ামী লীগ নেতা জহিরুল ইসলাম বিভিন্ন সময় খাদ্য গুদামে নানা অনৈতিক উপায়ে লাভবান হতে চেয়ে ছিলেন। তাতে আমি সায় না দেয়ায় আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা বানোয়াট অভিযোগ তুলেছেন। মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে আমাকে ঘায়েল করতে না পেরে আওয়ামী লীগ নেতা জহিরুল ইসলাম তদন্ত শেষে ফুলপুর উপজেলা পরিষদের নিচে আমাকে প্রাণনাশের হুমকি দেয়। বিষয়টি আমি উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে জানালে তিনি আইনগত ব্যবস্থা নিবেন বলে জানান।