পুলিশের ভূয়া এএসপি আটক, এএসপি পরিচয়ে ৩৫,৪০ মেয়ের সাথে সম্পর্ক

685
পুলিশের ভূয়া এএসপি

মোঃ খলিলুর রহমান, বিশেষ প্রতিনিধিঃ পুলিশের ভূয়া এএসপি – ময়মনসিংহের ফুলপুরে ফেসবুকের পরিচয়ে বিয়ের প্রস্তাব নিয়ে এসে ধরা পরেছে পুলিশের ভূয়া এএসপি। সোমবার রাতে উপজেলার রুপসী গ্রাম থেকে তাকে আটক করা হয়েছে।
তার নাম সোলাইমান কবির(৩৫)। সে শেরপুর জেলার ঝিনাইগাতী উপজেলার কুচনিপাড়া গ্রামের শাহজাহানের ছেলে। ভুয়া এএসপি পরিচয় দিয়ে সে কমপক্ষে ৩৫/৪০ জন মেয়ের সাথে সম্পর্ক করেছে।

জানা যায়, শেরপুর সরকারী কলেজে রাস্ট্রবিজ্ঞানে অনার্স ফাইনাল ইয়ারের ছাত্রী ফুলপুর উপজেলার রুপসী গ্রামের কেয়া (ছদ্দ নাম) নামে একজনের সাথে ফেসবুকে সোলাইমান কবিরের পরিচয় হয়।

ফেসবুকে পরিচয়ে সোলাইমান কবির নিজেকে ৪০ তম বিসিএস এর পুলিশের এএসপি হিসাবে পরিচয় দেয় এবং কেয়াকে বিবাহের প্রস্তাব দেয়। তাকে তখন কেয়া তার বাবার বাড়ী আসার জন্য বলে।

পরবর্তীতে সোমবার রাতে সোলাইমান একাই বিবাহের প্রস্তাব নিয়ে কেয়ার পিতার বাড়ী আসে। তখন তার কথাবার্তায় সন্দেহ হলে বাড়ির লোকজন তাকে আটক করে পুলিশে খবর দেয়।

সাথে সাথে পুলিশ সেখানে গিয়ে সোলাইমানকে আটক করে নিয়ে আসে। এসময় তার হেফাজত থেকে পুলিশের সরকারী বুট, একটি মোবাইল ও মানিব্যাগ উদ্ধার করা হয়। এ ব্যাপারে সোলাইমান কবিরের বিরুদ্ধে ফুলপুর থানার মামলা নং ১৬, তারিখ ১২/১০/২০২১ ধারা ১৭১/৪২০ দঃবিঃ দায়ের করা হয়েছে ।

ফুলপুর থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুল্লাহ আল মামুন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, তাকে আটকের পর আমাকে জানানো হয়।

তখন আমি ফোনে তাকে সালাম দিয়ে বিনয়ের সাথে জিজ্ঞেস করি, “স্যার আপনার পোষ্টিং কোথায়। তিনি বলেন, মামুন সাহেব আমার পোস্টিং ময়মনসিংহ জেলায়।( আমার খটকা লাগে) ”
আবার তাকে জিজ্ঞেস করি ময়মনসিংহ কোন ইউনিটে স্যার। তিনি বলেন,বুঝলেননা! “আমি ইন্টার্নি করতেছি (এটা শুনে কয়েক সেকেন্ড হেসেছি,কিন্তু বুঝতে দেইনাই,কারন এএসপি স্যারগন প্রবেশনার থাকেন,ইন্টার্নি না।) হেসে বলি,স্যার একটু ওয়েট করেন আমি আপনাকে আনার জন্য আমার গাড়ি পাঠাচ্ছি। পরে পুলিশ গিয়ে তাকে হেফাজতে নেয়।

যতটুকু তথ্য পেয়েছি ভুয়া এএসপি পরিচয় দিয়ে সে কমপক্ষে ৩৫/৪০ জন মেয়ের সাথে সম্পর্ক করেছে। তাদেরকে খুজে খুজে সতর্ক করে সর্বনাশের হাত থেকে বাঁচানোর প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। ওসি আরও বলেন, প্রতারক চক্র ইদানিং ফেসবুকের মাধ্যমে প্রতারনা শুরু করেছে।

ঘরের বোন, মেয়ে, স্ত্রী অর্থাৎ ঘরের মেয়েদের সব সময় সতর্ক রাখা জরুরি। তারা যেন ফেসবুকে অপরিচিত কোন ব্যাক্তির ফ্রেন্ড রিকুয়েষ্ট একসেপ্ট না করে।

উপরোক্ত ঘটনার ভুয়া এএসপি ভিকটিমকে বলে যে তার বাড়ী উত্তরা, ঢাকায় তার পাঁচ তলা বাড়ী, অথচ সে শেরপুরের বাসিন্দা। সরল বিশ্বাসে তার ছলনায় পড়ে মেয়েটি।