পুলিশকে জনগণের বন্ধু হিসেবে নিজেদের গড়ে তুলতে হবে – প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পুলিশ সদস্যদেরকে সততা ও নিষ্ঠার সঙ্গে কাজ করার আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘পুলিশকে জনগণের বন্ধু হিসেবে নিজেদের গড়ে তুলতে হবে। দেশের শান্তিশৃঙ্খলা রক্ষায় নিষ্ঠার সঙ্গে কাজ করতে হবে।’

রবিবার (১৫ সেপ্টেম্বর) রাজশাহীর সারদায় পুলিশ একাডেমিতে ৩৬তম বিসিএস ব্যাচের শিক্ষানবিশ সহকারী পুলিশ সুপারদের প্রশিক্ষণ সমাপনী কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা গণতন্ত্রকে সুপ্রতিষ্ঠিত করার মাধ্যমে দেশে আইনের শাসন ও ন্যায়বিচার নিশ্চিত করতে চাই। আমি আশা করি, আপনাদের প্রশিক্ষণলব্ধ জ্ঞান ও অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে ‘রূপক-২০২১’ এবং ‘রূপকল্প-২০৪১’ বাস্তবায়নের মাধ্যমে জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণে আন্তরিকভাবে সচেষ্ট থাকবেন।’

স্বাধীনতা সংগ্রামে পুলিশের গৌরবোজ্জ্বল ভূমিকার কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা বাংলাদেশ পুলিশকে স্বাধীনতা পদক ২০১১’ এ ভূষিত করেছি। আমার দৃঢ় বিশ্বাস, পুলিশের নবীন কর্মকর্তারাও তাদের পূর্বসূরীদের মতো দেশপ্রেম, পেশাদারিত্ব ও অসীম সাহসিকতার পরিচয় দেবেন।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘জনবান্ধব পুলিশি ব্যবস্থা গড়ে তুলতে সরকার কাজ করে যাচ্ছে। জনগণ পুলিশের কাছ থেকে যেন স্বল্প সময়ের মধ্যে কাঙ্ক্ষিত সেবা পায়, তা নিশ্চিত করতে হবে। এজন্য প্রযুক্তিনির্ভর আধুনিক পুলিশ গড়ে তোলা হচ্ছে। পুলিশের সেবা তাৎক্ষণিক পেতে জরুরি সেবা ‘৯৯৯’ চালু করা হয়েছে। পুলিশ দক্ষতার সঙ্গে এক্ষেত্রে কাজ করছে।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশ পুলিশের দক্ষতা ও সক্ষমতা বাড়াতে নতুন প্রযুক্তি, প্রশিক্ষণ, জনবল বৃদ্ধি, যথাযথ পদায়ন ও প্রণোদনার ব্যবস্থা করছে সরকার।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাস ও মাদক দমনে আমাদের অভিযান চলছে, চলবে। মাদকের কারণে বর্তমান যুবসমাজ ধ্বংসের পথে এগিয়ে যাচ্ছে। এটি রোধ করতে হবে। এক্ষেত্রে পুলিশ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে।’