‘পদ্মা সেতুর ফলে দারিদ্রতার হার ৫ ভাগ হ্রাস পাবে’

স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন সমবায় মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম বলেছেন, আশাকরি অল্প মধ্যে পদ্মা সেতু হয়ে যাবে। পদ্মা সেতুর ফলে অর্থনীতিবিদনের হিসেব অনুসারে জিডিপি ১ পারসেন্টের অধিক বেড়ে যাবে। আর এর মাধ্যমে দারিদ্রতাও কমে আসবে। বর্তমানে দেশে দারিদ্রতার হার হিসেব করা হয় ২০ পারসেন্ট। আমরা আশা করি তখন দারিদ্রতার হার প্রায় ৫ পারসেন্টে নেমে যাবে।

আজ শনিবার বিকেলে মাদারীপুরের শিবচর উপজেলা পরিষদ এলাকায় ৫০০ আসন বিশিষ্ট নূর ই আলম চৌধুরী অডিটোরিয়াম কাম মাল্টিপারপাস হলের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় সংসদের চিফ হুইপ নূর ই আলম চৌধুরী। শিবচর উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল লতিফ মোল্লার সভাপতিত্বে অন্যদের মধ্যে আরো উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় সরকার মন্ত্রনালয়ের অতিরিক্ত সচিব মেজবাউদ্দিন, স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের প্রধান প্রকৌশলী মো. আব্দুর রশীদ খান, জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের প্রধান প্রকৌশলী সাইফুর রহমান, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মুনির চৌধুরী, জেলা প্রশাসক ড. রহিমা খাতুন, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মাহবুব হাসান, স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী মুজিবুর রহমান শিকদার, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আসাদুজ্জামান,পৌর মেয়র আওলাদ হোসেন খান, উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মো. শাজাহান মোল্লা, সাধারণ সম্পাদক ডা. মো. সেলিমসহ উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ। অনুষ্ঠানটি উপস্থাপনা করেন সহকারী কমিশনার (ভূমি) এম রকিবুল হাসান।

এ সময় মন্ত্রী আরো বলেন, সারা দেশে ১ শত ইকোনমিক জোন গড়ে তোলা হবে। এদেশ কৃষিতে সমৃদ্ধ। কিন্তু এদেশের জনসংখ্যা প্রচুর। এত মানুষের অর্থনৈতিক উন্নয়নের জন্য প্রচুর শিল্পকারখানা গড়ে তুলতে হবে। পদ্মা সেতুকে ঘিরে সারা দেশে অর্থনৈতিক উন্নয়ন হবে। অসংখ্য শিল্প কারখানা গড়ে তোলা হবে। শীঘ্রই চট্টগ্রামে বিশাল এক অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তোলা হবে যেখানে ত্রিশ লাখ মানুষের কর্মসংস্থান হবে। এর মধ্য দিয়ে দেশে ১ পারসেন্ট জিডিবি বেড়ে যাবে। ফলে দেশে দারিদ্রতার হার কমে আসবে।

মন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধুর ভাবনা ছিল সকল মানুষকে নিয়ে ভালো থাকা। সেই স্বপ্ন বাস্তবায়নের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কাজ করে যাচ্ছেন। এরই ফলশ্রুতিতে সারা দেশে উন্নয়ন কাজ হচ্ছে। ২০৪১ সালের মধ্যে এদেশ উন্নত দেশে পরিণত হবে।

আইসিটি শিক্ষার গুরুত্ব নিয়ে মন্ত্রী বলেন, আইসিটি শিক্ষার প্রসারে সরকার ব্যপক কাজ করে যাচ্ছে। আইসিটি শিক্ষায় দক্ষতার মাধ্যমে এ দেশের তরুণ সমাজ ঘরে বসে উপার্জন করতে পারবে।

দিনের শুরুতে মন্ত্রী ও চিফ হুইপসহ অতিথিবৃন্দ মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক সাবেক সংসদ সদস্য মরহুম ইলিয়াস আহমেদ চৌধুরীর কবর জিয়ারত করেন। এ ছাড়া তিনি শিবচরের বিভিন্ন উন্নয়নমুলক কর্মকাণ্ড পরিদর্শন করেন। উপজেলা চেয়ারম্যানের বাসভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন।