নিজেদের যুদ্ধজাহাজে আত্মঘাতী ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালিয়েছে ইরান

পারস্য উপসাগরে নিজেদের জলসীমায় নৌবাহিনীর একটি যুদ্ধজাহাজ আত্মঘাতী ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালিয়েছে ইরান। এতে ওই জাহাজের অন্তত ১৯ জন নৌসেনা নিহত এবং ১৫ জন আহত হয়েছে।

তবে এই আত্মঘাতী হামলাকে দুর্ঘটনা হিসাবে প্রচার করছে ইরানি সংবাদ মাধ্যমগুলো।

দেশটির রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে প্রচারিত খবরে বলা হয়, রোববার মহড়া চলাকালে তেহরান থেকে প্রায় ১ হাজার ২৭০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পূর্বে ওমান সাগরের জাস্ক বন্দরে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

হামলার শিকার জাহাজটির নাম কোনারক। স্থানীয় সাংবাদিকরা জানিয়েছেন, ইরানের রেভল্যুশনারি গার্ড (আইআরজিসি) পরিচালিত ফ্রিগেট জামারান থেকে ছোড়া ক্ষেপণাস্ত্র ভুলক্রমে কোনারককে আঘাত হানলে এই দুর্ঘটনা ঘটে।

ইরানের রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা ইরনা জানিয়েছে, দুর্ঘটনায় আরও ১৫ সেনা আহত হয়েছেন এবং তাদেরকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

মেহরান আমিনি নামে একজন কর্মকর্তা জানান, দুর্ঘটনার পরপরই হাফতে তীর ডকইয়ার্ডে দশটি অ্যাম্বুলেন্স পাঠানো হয় এবং আহত ১৫ সেনাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এরমধ্যে আহত তিন সেনাকে প্রাথমিক চিকিৎসার পর ছেড়ে দেয়া হয়েছে।

সমুদ্রে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালাতে সক্ষম ছিল ৪৭ মিটার দৈর্ঘ্যের ডাচ-নির্মিত এই জাহাজটি।

ওমান সাগরের যে এলাকায় ওই জাহাজে হামলার ঘটনা ঘটেছে সেখানে নিয়মিত মহড়া চালিয়ে আসছে ইরান। এটি হরমুজ প্রণালীর পাশেই অবস্থিত।

এর আগেও এই অঞ্চলটিতে মহড়া চলার সময় দুর্ঘটনা ঘটেছে। তবে সেসব দুর্ঘটনা সম্পর্কে কম তথ্যই সরবরাহ করেছে ইরানি গণমাধ্যমগুলো। ফলে এসব দুর্ঘটনায় প্রকৃত হতাহতের খবর কখনও প্রকাশ পায় না।