নিজেকে প্রেসিডেন্ট দাবি করলেন বলিভিয়ার সিনেটের

পদত্যাগের পর বলিভিয়ার প্রেসিডেন্ট ইভো মোরালেস মেক্সিকোতে রাজনৈতিক আশ্রয় নিয়েছেন। এ সুযোগে বলিভিয়ার পার্লামেন্ট অধিবেশনে নিজেকে অন্তর্বতীকালীন প্রেসিডেন্ট দাবি করেছেন দক্ষিণ আমেরিকার দেশটির বিরোধীদলীয় সিনেটর জেনিন অ্যানেজ।

খুব শিগগিরই একটি জাতীয় নির্বাচন দেয়ার কথাও ঘোষণা করন বিরোধীদলীয় এ নেত্রী। খবর বিবিসি ও রয়টার্স।

এর প্রতিবাদে ইভো মোরালেসের দলের এমপিরা লার্লামেন্ট বয়কট করেন। তাদের দাবি এ সিদ্ধান্ত নেয়ার মতো সংসদের কোরাম পূর্ণ
হয়নি। তাই বিরোধীদলীয় এ নেত্রী এ হঠকারী সিদ্ধান্ত নিতে পারেন না।

ইভো মোরালেসও কট্টর ডানপন্থী এ নেত্রীর নিজেকে প্রেসিডেন্ট ঘোষণার ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন।
পদত্যাগের একদিনের মাথায় মঙ্গলবার ইভো মোরালেস মেক্সিকোর একটি রাষ্ট্রীয় উড়োজাহাজে করে লাতিন আমেরিকার দেশটির উদ্দেশে রওনা হন।

বলিভিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী মারসেলো অ্যাবরার্ড এক টুইটবার্তায় জানিয়েছেন, ইভো মোরালেস মেক্সিকোর একটি বিমানবাহিনীর উড়োজাহাজে করে দেশ ছেড়েছেন।

মেক্সিকো সরকারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, মানবিক দিক বিবেচনা করে ইভো মোরালেসের রাজনৈতিক আশ্রয়ের আবেদনে সাড়া দিয়েছে মেক্সিকো।

এর আগে ইভো মোরালেস তার সমর্থকদের উদ্দেশ্যে বলেছিলেন, যে ‘কালো শক্তি’ তাকে ক্ষমতাচ্যুত করেছে, তাদের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধভাবে রুখে দাঁড়াতে হবে।

এর পরই বলিভিয়ায় পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে কমপক্ষে ২০ জন মোরালেস সমর্থক আহত হয়েছেন।

ইভো মোরালেস বলিভিয়ার প্রথম আদিবাসী প্রেসিডেন্ট হিসেবে ২০০৬ সালে নির্বাচিত হয়ে দুই মেয়াদে ক্ষমতায় ছিলেন।

সম্প্রতি ত্রুটিপূর্ণ নির্বাচনের অভিযোগে দেশটির সেনাপ্রধান জনসমক্ষে তাকে পদত্যাগ করার আহ্বান জানান। পুলিশ ও সেনাবাহিনীর যৌথ চাপের মুখে পদত্যাগ করতে বাধ্য হন তিনি।

ইভো মোরালেসের পদত্যাগের পর সিনেটের সহকারী প্রধান অন্তর্বর্তীকালীন সরকারের প্রধান হিসেবে দায়িত্ব নিয়েছেন।