দুই তরুণীর বিয়ে

একজন বাঙালি, অন্যজন মার্কিন। কিন্তু এই দুই তরুণী প্রথম দেখাতেই একজন আরেকজনের প্রেমে পড়ে যায়। শুরু হয় মন দেয়া নেয়া। এবার শেষটা হলো শুভ পরিণয়ে।

সমলিঙ্গের সম্পর্ককে স্বীকৃতি দিতে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত বাঙালি ললনা ইয়াশরিকা জাহরা হককে বিয়ে করলেন মার্কিন তরুণী এলিকা রুথ কুকলি (৩১)।

গেল বছরের ৬ জুন তারা বিয়ে করেন। এর ৪ বছর আগে ২০১৫ সালে একটি এলজিবিটি মার্চে তাদের প্রথম দেখা হয়। সেখান থেকেই সম্পর্কের সূত্রপাত।

প্রথম প্রেমের অনুভূতি ব্যক্ত করে ইয়াশরিকা বলেন, ‘ ওকে (কুকলি) প্রথম দেখায় আমি ওর প্রেমে পড়ে যাই। সেই অনুভূতি ভাষায় প্রকাশ করতে পারবো না। তখন সেও সিঙ্গেল ছিল, আমিও। এর পর ধীরে ধীরে আমরা পরস্পরের কাছে আসি।’

কুকলি বলেন, ‘প্রথম দেখার কয়েক মাস পরই বন্ধুর এক পার্টিতে ইয়াশরিকার সঙ্গে দেখা ও কথা হয়। সেই দিন সারা রাত আমরা একসঙ্গে কাটাই। গল্প করি। তখনই আমি বুঝতে পেরেছিলাম, সে আমাকে ভালোবাসতে শুরু করেছে। সে খুবই মায়াবী ও আমার প্রতি আন্তরিক মেয়ে।’

সমলিঙ্গের বিয়ে নিয়ে বাঙালি কন্যা ইয়াশরিকা বলেন, ‘এতদিনে দুটো চুম্বল জোড়া লাগবো। আমি খুবই খুশি। ওকে নিয়ে সুখে জীবন কাটাতে চাই।’

ইয়ামিন হক ও ইয়াসমিন হক দম্পতির কন্যা ইয়াশরিকা ওয়াশিংটনের জর্জটাউন ইউনিভার্সিটি থেকে পড়া শেষে আইন বিষয়ে ডিগ্রি নেন ইলিনয়েসের নর্থ ওয়েস্টার্ন ইউনিভার্সিটি থেকে। বর্তমানে তিনি একটি ল’ ফার্মে অ্যাসোসিয়েট হিসেবে কর্মরত আছেন।’

হাফ মিলিয়ন ডলার ব্যয়ের সেই বিয়েটি হয়েছিল সম্পূর্ণ বাঙালি রীতি ও ঐতিহ্য মেনেই। বিয়েতে ইয়াশরিকা পরেন লাল বেনারসি আর দুহাতে ছিল মেহেদি। বিয়েতে পেশায় অডিওলজিস্ট কুকলি পরেছিলেন অফ হোয়াইট শেরওয়ানি ও লাল পাজামা। গলায় ছিল মুক্তার মালা।