ত্রিশালে নিরাপদ সবজি বিক্রয় কর্ণার উদ্বোধন

ফারুক আজমেদ :
বহস্পতিবার বিকেলে ময়মনসিংহের ত্রিশালে ইউএনও অফিস প্রাঙ্গনে নিরাপদ সবজি বিক্রয় কর্ণার উদ্বোধন করেন ত্রিশাল উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল মতিন সরকার ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোস্তাফিজুর রহমান। এ সময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মাহমুদা খানম (রুমা), উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শোয়েব আহমেদ ও কৃষি প্রযুক্তি কেন্দ্র, ত্রিশালের পরিচালক নিতাই চন্দ্র রায়। সবজি বিক্রয় কর্ণারটিতে পরিবেশবান্ধব কৌশলের মাধ্যমে নিরাপদ ফসল উৎপাদন প্রকল্পের অন্তর্ভুক্ত আইপিএম মডেল ইউনিয়ন দরিবামপুরের বীরবামপুর গ্রামের ৫শত জন কৃষক জৈব কৃষি ও জৈবিক বালাই দমন ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে যে শীতকালীন সবজি- ফুলকপি, বাঁধাকপি, লাউ, টমেটো, ব্রোকলি, বেগুন প্রভৃতি উৎপাদন করেন, সেসব সবজিই এই কর্ণারে বিক্রি করা হবে সপ্তাহে ৫দিন, রবিবার থেকে বৃস্পতিবার পর্যন্ত। উল্লেখ্য এইসব সবজি উৎপাদনে কেঁচো কম্পোষ্ট সার ও পোকামাকড় দমনে রাসায়নিক কীটনাশকের পরিবর্তে সেক্স ফেরোমন ফাঁদ, রঙিন আঠালো ফাঁদ. জৈব বালাই নাশক ব্যবহার করা হয়েছে। কীটনাশক ও রাসায়নিক সার ব্যবহার না কারায় পণ্য উৎপাদনে কৃষকের খরচ কম হওয়ায় লাভও হবে বেশি। উৎপাদিত বিষমুক্ত নিরাপদ সবজির ন্যায্যমূল্য নিশ্চিত করার জন্য একশপ, কৃষাণ, আই ফার্মার, ডিজিটাল আড়তদার, আগোরা, স্বপ্ন প্রভৃতি অনলাইন কৃষিপণ্য বিক্রয়কারী প্রতিষ্ঠানে সাথে প্রকল্পভুক্ত ৫০০ কৃষকের সাথে নিবিড় সম্পর্ক সৃষ্টি হওয়া প্রযোজন বলে মনে করেন অভিজ্ঞমহল। এ ব্যাপারে কৃষি বিপণন অধিদপ্তর, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর বিশেষ করে প্রকল্পের সাথে যুক্ত প্রকল্প পরিচালকসহ অন্যান্যরা বিশেষ ভূমিকা রাখতে পারেন। কারণ কৃষক যদি উৎপাদিত পণ্য বিক্রি করে লাভবান না হন তাহলে প্রকল্পের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য কখনো সফল হবে না।