তিন তালাক ভারতে ফৌজদারি অপরাধ

ভারতে তিন তালক এখন ফৌজদারি অপরাধ বলে গণ্য হবে। দেশটির পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষ লোকসভায় তালাক বিল আগেই পাশ হয়েছিল কিন্তু এবার উচ্চকক্ষ রাজ্যসভাতেও পাশ হল বিলটি। এতে ভারতে তিন তালাক দেয়া শাস্তিমূলক অপরাধ বলে গণ্য হবে। শুধু তাই নয় কারাদণ্ড হওয়া শুধু সময়ের ব্যপার মাত্র।

মঙ্গলবার (৩০ জুলাই) রাজ্যসভায় ৯৯-৮৪ ভোটের ব্যবধানে বিলটি পাশ হয়েছে।

প্রসঙ্গত, ইসলামী শরীয়া আইনে বিবাহ বিচ্ছেদের জন্য তিন তালাক ব্যবহার করা হয়।

এখন রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ বিলটিতে সই করলেই বিলটি আইনে পরিণত হবে। এরপর তিনবার ‘তালাক’ উচ্চারণ করে বিবাহবিচ্ছেদ ঘটানো ফৌজদারি অপরাধ বলে গণ্য হবে।

‘মুসলিম নারী (বিবাহের নিরাপত্তা অধিকার) বিল’ নামের বিলটিই ‘তিন তালাক বিল’ হিসাবে পরিচিত। বিলটি আইনে পরিণত হলে স্ত্রীকে তাৎক্ষণিকভাবে তিন তালাক দিলে তিন বছর পর্যন্ত কারাদণ্ড হতে পারে মুসলিম পুরুষদের।

ভারতীয় গণমাধ্যম আনন্দবাজার জানিয়েছে, বিলটি পাশের পর টুইটারে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

তিনি লিখেছেন, ‘তিন তালাকের মতো একটি প্রাচীন এবং মধ্যযুগীয় প্রথাকে আবর্জনার স্তূপে ছুড়ে ফেলা গেল। মুসলিম নারীদের ওপর এতদিন ধরে চলে আসা একটি ঐতিহাসিক ভুল শুধরানো সম্ভব হল সংসদে। এ সিদ্ধান্ত লিঙ্গ বৈষম্যের বিরুদ্ধে জয়। এর ফলে সমাজে সমানাধিকার প্রতিষ্ঠার পথ আরও প্রশস্ত হল। আজ ভারতের খুশির দিন।’

আইনমন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদও বলেছেন, ‘আজ একটি ঐতিহাসিক দিন। মুসলিম নারীদের ন্যায় বিচার দিয়েছে সংসদের দু’কক্ষই।’

বিলের সমর্থকরা নতুন এ আইনকে মুসলিম নারীদের রক্ষাকবচ বলে উল্লেখ করেছে। অন্যদিকে, বিরোধীরা তিন তালাকের জন্য আইনি দণ্ডকে কঠোর বলে বর্ণনা করেছে এবং এর অপব্যবহার হওয়ার সুযোগ আছে বলে অভিযোগ করেছে।