জাককানইবিতে ছাত্রলীগের মুগ্ধতায় ভর্তিচ্ছুরা, শেষ হলো ভর্তি যুদ্ধ

ফারুক আহমেদ,ত্রিশাল :
জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয় ২০১৯-২০২০ সেশনের ৫ দিন ব্যাপী ভর্তি যুদ্ধ শেষ হয়েছে বৃহস্পতিবার । ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীদের সহায়তায় বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করছে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগ। ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীদেরর স্বাগত জানিয়ে জয় বাংলা বাইক সার্ভিস, বিশুদ্ধ খাবার পানি, শিক্ষা উপকরণ বিতরণ সহ নানা ধরনের সেবা কার্যক্রম করে প্রশংসায় ভাসছে রাজনৈতিক এই সংগঠন। এ লক্ষ্যে শাখা ছাত্রলীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীদের মাঝে দায়িত্ব ভাগ করেও দেয়া হয়েছে।

এরই ধারাবাহিকতায়, হলের অভ্যর্থনা কক্ষে দূর-দূরান্ত থেকে আগত ভর্তিচ্ছুদের অভ্যর্থনা দিয়ে আবাসন ব্যবস্থা। আগন্তুক শিক্ষার্থীদের যাতে কোন কষ্ট না হয় এজন্য থাকার ও মশার কয়েল সরবরাহ করছে ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে। এমনকি নিজেরা না ঘুমিয়ে ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীদের রুম ছেড়ে দিচ্ছে জাককানইবির শাখা ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা।

হলে পর্যাপ্ত খাবারের ব্যবস্থা এবং স্বল্প খরচে খাবারের ব্যবস্থা করার দিকেও নজরদারিতে ছিলেন ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে যে মূল্য তালিকা দেয়া হয়ে সে অনুযায়ী খাবার মূল্য নিচ্ছে কিনা তা খতিয়ে দেখছে তারা। শাখা ছাত্রলীগের আরেক নেতা মোস্তাফিজুর রহমান রিমন বলেন, রাত দিন পরিশ্রম করছি শুধু ছাত্রলীগের সুনাম রক্ষা করতে।

এছাড়াও সরেজমিনে দেখা যায়,ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীদের জন্য তথ্য প্রদান ও শিক্ষার্থী সহায়তা কেন্দ্র, সুপেয় পানির ব্যবস্থা, ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীদের স্বাগতম জানাতে শুভেচ্ছা মিছিল, ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীদের শিক্ষা উপকরণ বিতরণ, পরীক্ষা কেন্দ্রের সামনে শিক্ষার্থী-অভিভাবকদের ক্যাম্পাসে বসার ব্যবস্থা করা, পরিবহন ধর্মঘটের কারণে আটকেপরা শিক্ষার্থীদের জয় বাংলা বাইক সার্ভিস দিয়ে নিদিষ্ট সময়ে পরীক্ষা হলে পৌছে দেওয়া সহ নানা কর্মসূচি গ্রহণ করেছে ছাত্রলীগ। ছাত্রলীগের এই আয়োজনকে স্বাগত জানিয়েছে শিক্ষার্থী, অভিভাবকসহ বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের ব্যক্তিবর্গ। অনুভূতিও ব্যক্ত করেছেন দেশের দূর-দূরান্ত থেকে ছুটে আসা শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা।

শিক্ষার্থীরাও জানিয়েছে তাদের অনুভূতির কথা, ঢাকা থেকে আসা তুহিন রহমান নামে এক পরীক্ষার্থী বলেন, ‘এখানে আমার তেমন পরিচিত কেউ ছিল না, ভাবছিলাম কোথায় থাকব, কিন্তু এখানে আসার পর ভাইয়াদের আন্তরিকতায় মুগ্ধ হয়েছি। পরিবহণ ধর্মঘটে আটকে যাওয়া আনিকা নামে এক ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থী জানান, বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগের এক ভাই, জয় বাংলা বাইক সার্ভিস দিয়ে আমাকে পরীক্ষা হলে নিয়ে এসেছে তাই আমি পরীক্ষায় অংশগ্রহন করতে পেরেছি।

জাককানইবির শাখা ছাত্রলীগ সভাপতি নজরুল ইসলাম বাবু ও সাধারন সম্পাদক মো: রাকিবুল হাসান রাকিব জানান, জাককানইবি শাখা ছাত্রলীগ শিক্ষার্থী বান্ধব রাজনীতি করে, তাই শিক্ষার্থীরা পরীক্ষা দিতে এসে যাতে কোন ধরণের সমস্যায় না পড়ে যায় সেই লক্ষ্যে শিক্ষার্থীদের সহায়তা দিতে পরীক্ষা চলাকালীন সময় ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীরা সার্বক্ষণিক কাজ করেছে। ইতোমধ্যেই আমরা আবাসিক হলগুলোতে ভর্তিচ্ছুদের থাকার ব্যবস্থা করেছি। এছাড়াও প্রত্যেকটি ভবনের সামনে ভর্তিচ্ছুদের সহায়তার জন্য ছাত্রলীগের বিভিন্ন ইউনিটের নেতাকর্মীরা অবস্থান করছে। এছাড়া ভর্তিচ্ছু এবং তাদের অভিভাবকদের সকল ধরনের সেবা প্রদান করেছি ।

এদিকে, ছাত্রলীগের সহায়তার এমন বর্ণিল আয়োজনে মুগ্ধ শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা। এমন ছাত্রলীগের দ্বারাই সোনার বাংলা গড়া সম্ভব বলে অভিমত ব্যক্ত করেছেন অভিভাবকেরা এবং ছাত্রলীগকে সকল ক্ষেত্রে এ সেবা কার্যক্রম অব্যাহত রাখার কথা জানান তারা।