খাবারের দাম দিতে হবে অতিথিদের, নইলে বিয়ে বাতিলের হুমকি কনের

বিয়ের মোটা খরচ সম্পর্কে সকলেরই অনুমান রয়েছে। যে হারে সকল জিনিসের দাম বেড়ে চলেছে তাতে আজকের বাজারে কয়েক লাখ টাকা খরচ হয়ে যায় একটি বিয়েতে। যদি সেই বিয়েতে আত্মীয়দেরকে সঙ্গে নিয়ে সবরকম আচার ও অনুষ্ঠান পালন করতে হয়। তাহলে খরচের অংক বেড়ে যায় আরও।

তবে যেকোনো বিয়ের অন্যতম বড় খরচ হচ্ছে অতিথি আপ্যায়ন। সেক্ষেত্রে বিপাকে পড়ে অভিনব প্রস্তাব দিয়েছেন এক কনে। তিনি জানিয়েছেন, দ্রব্যমূল্যের আগুনে বাজারে তার পরিবারের পক্ষে বিপুল খরচ সামলে ওঠা সম্ভব হচ্ছে না।

অতএব, যারা আমন্ত্রিত হবেন বিয়েতে, তাদেরকেই দিতে হবে খাওয়ার খরচ। আর তা না হলে বিয়েই বাতিল করতে বাধ্য হবেন তিনি। গত ৪ আগস্ট এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম মিরর।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, অতিথিদের খাবার খরচ দেয়া নিয়ে কনের বিস্তারিত আবেদনের স্ক্রিনশট ভাইরাল হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। সেখানে ওই কনে লিখেছেন, ‘কেউ কি অতিথির কাছ থেকে খাবারের খরচ চায়? কিন্তু এই মুহূর্তে সবকিছুর দাম আকাশ ছোঁয়া। ফলে হয় আমাদের অক্টোবর মাসের বিয়ে বাতিল করতে হবে, অথবা উপহারের বদলে অতিথিদের থেকে খাবারের খরচ নিতে হবে।’

ওই তরুণী আরও লিখেছেন, ইতোমধ্যে অতিথিদের আমন্ত্রণ করা হয়েছে, জানি না এখন কীভাবে পরিস্থিতি সামলাবো। দয়া করে (সবাই) আমার পাশে থাকুন। মন ভালো নেই, আমরা চাপে আছি।

এমনকি লেখার শেষে কান্নার ইমোজিও দিয়েছেন কনে। এদিকে স্ক্রিনশটের সঙ্গে ভাইরাল পোস্টে ক্যাপশনে লেখা হয়েছে, ‘কনে বিয়ের বাজেট সামলাতে পারছেন না। অতিথিদের কাছেই অনুষ্ঠান খরচ দাবি করেছেন তিনি।’

এদিকে, কনের এমন আবেদনের পর তার পাশেই দাঁড়িয়েছেন সোশ্যাল মিডিয়ার অনেক ব্যবহারকারী। একজন লিখেছেন, ‘আমার কাছে যদি উপহারের বদলে খাওয়া খরচ চাওয়া হতো, তবে আনন্দের সঙ্গে দিতাম। এই অনুষ্ঠানগুলোতে আত্মীয়-স্বজনদের সঙ্গে একটা দিন কাটাতে চায় সকলে। অতএব, এই চাওয়ার মধ্যে অন্যায় নেই।’

আরও এক ব্যবহারকারীও কনের বক্তব্যে কোনো ভুল দেখছেন না বলে জানিয়েছেন। তার কথায়, ‘ঠিকই আছে। যদি উপহার আশা না করা হয়।’

আরেকজন লিখেছেন, ‘তেমন খারাপ পরিস্থিতিতেই এমন সিদ্ধান্তে আসতে হয়েছে এই পরিবারটিকে। দুর্ভাগ্যজনক অবস্থা।’