কেন্দুয়ায় প্রধানমন্ত্রীর উপহার ঘরে দুর্বৃত্তদের আগুন

নেত্রকোনার কেন্দুয়া উপজেলাধীন ভূমিহীন ও গৃহহীনদের জন্য নির্মাণাধীন প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘরে এবার আগুন দেয়ার ঘটনা ঘটেছে। ঘটনাটি শনিবার (১৩ আগস্ট) ভোর রাত সাড়ে ৪টার দিকে উপজেলার বলাইশিমুল গ্রামে আশ্রয়ন প্রকল্পে ঘটেছে। এর আগে গত ৩০ জুন বৃহস্পতিবার রাত ৯টার দিকে ওই প্রকল্পের নির্মাণাধীন ঘর ভাংচুর করেছিল দুর্বৃত্তরা। খবর পেয়ে শনিবার সকালে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন জেলা প্রশাসক অঞ্জনা খান মজলিশ, ইউএনও মাহমুদা বেগম, কেন্দুয়া সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার জোনাঈ আফ্রাদ, কেন্দুয়া থানা ওসি আলী হোসেন পি.পি.এম। সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, নির্মাণাধীন ১৯টি ঘরের মধ্যে ৯/১০ টি ঘরের চালে টিন লাগানো হয়েছে। এসব ঘরের ৭ ও ৮ নং ঘরে পাটের মধ্যে ধার্য্য পদার্থ দিয়ে আগুন ধরিয়ে দেয় দুর্বৃত্তরা।

সূত্র জানায়, বলাইশিমুল গ্রামের হাওড়ের পাশে ১ একর ৮৭ শতাংশ জায়গা জুড়ে একটি খেলার মাঠ রয়েছে। ইতিমধ্যে মাঠে চার পাশে ৭৬ শতাংশ জায়গা দখল করে নিয়ে যায় পাশের ক্ষেতের মালিকরা। উপজেলা প্রশাসন মাঠের জায়গাটি দখল মুক্তকরণসহ দুই পাশে প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘর ১২টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারের জন্য প্রকল্প গ্রহণ করে। ঘর নির্মাণকাজের প্রস্তুতি জেনে এলাকাবাসী মাঠ রক্ষার দাবিতে গত ২৮মে মাঠেই মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করে। পরের দিন ৩০মে একদিকে ঘর নির্মাণের জন্য ইট, বালুসহ অন্যান্য নির্মাণসামগ্রী পাঠিয়ে কাজ শুরু করা হয়।

অপরদিকে ৩০মে মাঠ রক্ষার দাবি নিয়ে প্রশাসনে বিরুদ্ধে আদালতে মামলা দায়ের করে দেন। এই মামলার বাদী হন বলাইশিমুল গ্রামের বাসিন্দা হাবিবুর রহমান মণ্ডলসহ ৮ জন। মামলায় বিবাদী করা হয় কেন্দুয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও), সহকারী কমিশনার (ভূমি), উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও নেত্রকোনা জেলা প্রশাসককে। শুনানি শেষে আদালত মামলাটি খারিজ করে দিলে গ্রামের একাংশ মানুষ মাঠ রক্ষা দাবী তুলে আন্দোলনে নামে। ইতিমধ্যে তারা ৪/৫ টি মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেন।

এদিকে গত ৩০ জুন বৃহস্পতিবার রাত ৯টার দিকে এক দল দুর্বৃত্তরা প্রকল্প এসে পাহারারত গ্রাম পুলিশকে অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে নির্মাণাধীন ঘর ভাঙচুর করে। এ ঘটনায় দ্রুত বিচার আইনে মামলা হয়। এ ঘটনার প্রায় আড়াই মাসের মাথায় এসে নির্মাণাধীন ঘরে আবরো আগুন ধরিয়ে দেয় দুর্বৃত্তরা।

এ ব্যাপারে ইউএনও মাহমুদা বেগম বলেন ঘর নির্মাণকাজে সার্বক্ষণিক পুলিশ ও গ্রাম পুলিশ পাহারায় রাখা হয়েছিল। শুক্রবার ভোর রাতে একদল লোক এসে নির্মাণাধীন ঘরে আগুন লাগিয়ে পালিয়ে যায়। কেন্দুয়া থানা ওসি আলী হোসেন পিপিএম জানান, এ ঘটনায় মামলা দায়ের প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।