কবি আশরাফ সিদ্দিকি আর নেই

কবি আশরাফ সিদ্দিকি আর নেই।
লেখক, গবেষক ও কবি আশরাফ সিদ্দিকী না ফেরার দেশে পাড়ি জমিয়েছেন। বুধবার দিবাগত রাত ৩টায় রাজধানীর অ্যাপোলে হাসপাতালে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৯৩ বছর। তিন বেশ কিছু দিন ধরেই বার্ধক্যজনিত রোগে ভুগছিলেন।

আশরাফ সিদ্দিকীর মৃত্যুর বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন তার মেয়ে তাসনিম সিদ্দিকী।

তিনি বলেছেন, ‘ধানমন্ডির শাহী মসজিদে বাদ জোহর জানাজা শেষে বাবাকে বনানী কবরস্থানে দাফন করা হবে। করোনা ভাইরাস সংক্রমণের কারণে আমরা বেশি লোক জমায়েত চাইছি না। বাংলা একাডেমিতেও মরদেহ নেয়া হবে না। আমরা চাই- বাবার জন্য সবাই বাসায় থেকেই দোয়া করবেন।’

৪০ এর দশকে কবি হিসেবে বাংলা সাহিত্যাঙ্গনে আত্মপ্রকাশ করা আশরাফ সিদ্দিকী পাঁচ শতাধিক কবিতা লিখেছেন। গবেষণা করেছেন বাংলার লোকঐতিহ্য নিয়ে। একাধারে তিনি ছিলেন প্রবন্ধকার, লোকসাহিত্যিক, গবেষক, ছোটগল্পকার ও শিশু সাহিত্যিক। তাঁর রচিত গ্রন্থের সংখ্যা ৭৫টি। লিখেছেন অসংখ্য প্রবন্ধ।

১৯৮৮ সালে সাহিত্যে একুশে পদক, ১৯৬৪ সালে শিশু সাহিত্য বাংলা একাডেমি পুরস্কার, ১৯৬৬ সালে সাহিত্যে সর্বোচ্চ রাষ্ট্রীয় পুরস্কার, ইউনেসকো পুরস্কার, লোকসাহিত্য গ্রন্থের জন্য দাউদ পুরস্কারে ভূষিত হন আশরাফ সিদ্দিকী ।

১৯২৭ সালের ১ মার্চ টাঙ্গাইলের নাগরবাড়ী গ্রামে জন্মগ্রহণ করা এই সচ্যসাচী সাহিত্যিক পড়াশোনা করেন শান্তিনিকেতন ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে। এছাড়াও আমেরিকার ইন্ডিয়ানা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে দ্বিতীয় এমএ ও পিএইচডি ডিগ্রি অর্জন করেন।

কর্মজীবনে তিনি রাজশাহী কলেজ, চট্টগ্রাম কলেজ, ময়মনসিংহের এমএ কলেজ, ঢাকা কলেজ, জগন্নাথ কলেজ ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যাপনা করেন। বাংলা একাডেমির মহাপরিচালকেরও দায়িত্ব পালন করেন আশরাফ সিদ্দিকী।