উইমেন লিডার্স প্রকল্পের সমাপনী অনুষ্ঠান ও নতুন কমিটি ঘোষণা

82

অনলাইন ডেস্ক ;
নানা আয়োজনে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ে (জাককানইবি) উইমেন লিডার্স প্রকল্পের সমাপনী অনুষ্ঠান ও নতুন কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে। সানজিদা ইসলাম ইরাকে সভাপতি ও আঁখি রানী দাস তিতলিকে সাধারণ সম্পাদক করে নতুন কমিটি ঘোষণা করা হয়।

সোমবার (১৩ ডিসেম্বর) সকাল সাড়ে ৯ টায় বাংলাদেশের সুবর্ণজয়ন্তী ও বিজয়ের মাস উদযাপন উপলক্ষে বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি পালন করা হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্তর্বর্তীকালীন উপাচার্য প্রফেসর মো. জালাল উদ্দিনের উপস্থিতিতে কেন্দ্রীয় লাইব্রেরির সামনে থেকে রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেন স্মরণে পদযাত্রা শুরু করে প্রশাসনিক ভবনে শেষ হয়। এরপর কনফারেন্স রুমে মূল আলোচনা সভা শুরু হয়।

অনুষ্ঠানের শুরুতে অতিথিদের ফুল ও বই দিয়ে বরণ করে নেওয়া হয়। এসময় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ, ময়মনসিংহ শাখার সাবেক সভাপতি ফেরদৌস আরা মাহমুদা হেলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ড. উজ্জ্বল কুমার প্রধান, ছাত্র উপদেষ্টা ড. তপন কুমার সরকার, সেন্টার ফর পিস অ্যান্ড জাস্টিস- ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রজেক্ট ম্যানেজার জিয়া উদ্দীন এবং প্রজেক্ট প্রকল্প পরিচালক এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের ফোকলোর বিভাগের বিভাগীয় প্রধান মো. বাকীবিল্লাহ।

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন ইংরেজি ভাষা ও সাহিত্য বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. শেখ মেহেদী হাসান, ফিনান্স এন্ড ব্যাংকিং ডিপার্টমেন্টের সহযোগী অধ্যাপক চন্দন কুমার পাল, হিউম্যান রিসোর্স ম্যানেজমেন্ট বিভাগের সহকারী অধ্যাপক আলভী রিয়াসাত মালিক, সমাজবিজ্ঞান বিভাগের বিভাগীয় প্রধান মো. রিয়াজুল ইসলাম, পপুলেশন সায়েন্স বিভাগের প্রভাষক সাইফুল ইসলাম, দর্শন বিভাগের প্রভাষক মো. তারিফুল ইসলাম, ফোকলোর বিভাগের প্রভাষক মো. রকিবুজ্জামান, ম্যানেজমেন্ট বিভাগের প্রভাষক মো. রফিকুল ইসলাম প্রমুখ।

প্রকল্প নিয়ে আলোচনা সভায় বাকীবিল্লাহ বলেন, শান্তিপূর্ণ পৃথিবীর জন্য নারী-পুরুষ, ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সবাইকে একসঙ্গে কাজ করতে হবে। উইমেন লিডার্স সেই কাজ করে যাচ্ছে। ভবিষ্যতে এই কাজ আরও বেগবান হবে এমনই প্রত্যাশা। বিশ্ববিদ্যালয়ের ৫০ জন নারী শিক্ষার্থী ও দেশের বিভিন্ন স্থানের ২০ জন শিক্ষার্থী-স্বেচ্ছাসেবক নিয়ে ২০২১ সালের জানুয়ারিতে যাত্রা শুরু করে উইমেন লিডার্স। শান্তি, সামাজিক সহিষ্ণুতা, ঘৃণা- বিদ্বেষপূর্ণ বক্তব্য পরিহার এবং কোভিড-১৯ এর পরিপ্রেক্ষিতে সৃষ্ট নারী সহিংসতা প্রতিরোধ নিয়ে কাজ করছে এই প্রকল্প।

প্রসঙ্গত, উইমেন লিডার্স ইউরোপীয় ইউনিয়নের অর্থায়নে পরিচালিত ‘নেটওয়ার্ক ফর রিলিজিয়াস এন্ড ট্র্যাডিশনাল পিসমেকার্স’ এর আওতায় আহা (অ্যাওয়ারনেস উইথ হিউম্যান অ্যাকশন) প্রজেক্টের একটি উদ্যোগ। যেখানে সহযোগী প্রতিষ্ঠান হিসেবে যুক্ত আছে ফিন চার্চ এইড, ওয়ার্ল্ড ফেইথ ডেভেলপমেন্ট ডায়ালগ, সেন্টার ফর পিস অ্যান্ড জাস্টিস, ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়সহ বিশ্বের আরও কয়েকটি প্রতিষ্ঠান।

আলোচনা সভা শেষে প্রকল্পের বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণকারী প্রতিযোগিদের মধ্যে পুরস্কার হিসেবে বই, সার্টিফিকেট বিতরণ করা হয়। অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় পর্বে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। সময়োপযোগী অনবদ্য এই প্রকল্পের কার্যক্রম প্রতিটি নারীর জীবনপথে নেতৃত্ব প্রদানে সাহায্য করবে এই প্রত্যাশা রেখে প্রকল্পটির আনুষ্ঠানিক সমাপ্তি পর্ব অনুষ্ঠিত হয়।

এসময় সানজিদা ইসলাম ইরাকে সভাপতি ও আঁখি রানী দাস তিতলিকে সাধারণ সম্পাদক করে উইমেন লিডার্সের আগামী ১ বছরের কমিটি ঘোষণা করা হয়। অন্যান্যদের মাঝে কমিটিতে সহ-সভাপতি প্রবীন হেনরি ত্রিপুরা, শিক্ষা ও গবেষণার সম্পাদক বিজয়া সুমি রখো, সাংস্কৃতিক ও ক্রীড়া সম্পাদক মালিহা তাবাসসুম মিথিলা, সাংগঠনিক সম্পাদক মো. নওশাদ আলী, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক খায়রুল বাশার রয়েছেন। এছাড়াও কার্যনির্বাহী সদস্য হিসেবে রয়েছেন- মাশকাতুল জিনান, জাকিয়া সুলতানা, রাফিয়া ইসলাম ভাবনা, কানিজ ফাতেমা সুরমা ও মো. আমান উল্লাহ।

উল্লেখ্য, নারী নেতৃত্বের বিকাশ ও নারীর জীবনের নানাবিধ প্রতিকূলতা- নারী সহিংসতা, বিদ্বেষমূলক কথাবার্তা, লিঙ্গ বৈষম্যসহ সমাজে চলমান প্রভৃতি অসমতা বিষয়াবলীর নিরসনে উইমেন লিডার্স প্রজেক্ট সক্রিয় ভূমিকা পালন করছে। কোভিড-সময়ে নারী কিভাবে নেতৃত্ব দিবে, সেই লক্ষ্যে উইমেন লিডার্স কর্তৃক পিস অ্যাম্বাসিডর ও স্বেচ্ছাসেবকদের জন্য বিভিন্ন নিয়মিতভাবে বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করে।

অনলাইন ও অফলাইন দুইটি ফেজে প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হয়েছে। ফ্রেশারস রিসিপশন, নারীদের মানসিক স্বাস্থ্য সচেতনতা বিষয়ক কর্মশালা, নিবন্ধ লেখার প্রশিক্ষণ ও প্রতিযোগিতা, ডিজিটাল লিটারেসি ওয়ার্কশপ, বিতর্ক প্রতিযোগিতা, ফটোগ্রাফি কনটেস্ট, গবেষণা পদ্ধতি বিষয়ক প্রশিক্ষণ, ধর্মীয় সহিষ্ণুতা, সরাসরি ফিল্ডওয়ার্ক কার্যক্রম, ওয়েবসাইট তৈরিসহ নানান কর্মকাণ্ড সম্পন্ন করেছে উক্ত প্রকল্পটি।