ইরানের পক্ষে চরবৃত্তি করায় ইসরায়েলে ৪ নারী অভিযুক্ত

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : চার নারীসহ পাঁচজন ইরানের হয়ে চরবৃত্তি করেছিল বলে অভিযোগ তুুলেছে ইসরায়েল। এরা সবাই ইরান থেকে আসা ইহুদি।

ইসরায়েলের অভ্যন্তরীণ গোয়েন্দা শাখা শিন বেট এই পাঁচজনের বিরুদ্ধে আদালতে গুরুতর অপরাধের অভিযোগ এনেছে। ইসরায়েলের গণমাধ্যম জানিয়েছে, পাঁচজনই ইরান থেকে আসা ইহুদি।

ওই পাঁচজনকেই সামাজিক মাধ্যম থেকে বেছে নিয়েছিল রামবুদ নামদার নামে পরিচিত ইরানের এক গোয়েন্দা এজেন্ট। সে নিজেকে ইরানের ইহুদি বলে পরিচয় দিয়ে ফেসবুকে চার নারী ও এক পুরুষের সঙ্গে যোগাযোগ করে।

তারপর তাদের সঙ্গে সে কয়েক বছর ধরে হোয়াটস অ্যাপে চ্যাট করেছে। তাদের দায়িত্ব ছিল মার্কিন দূতাবাসসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ জায়গার ছবি তুলে পাঠানো। তারা বিভিন্ন তথ্য এবং ছবি ওই এজেন্টকে পাঠিয়েছিল।

ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী নাফতালি বেনেট গোয়েন্দা সংস্থাকে ধন্যবাদ দিয়ে জানিয়েছেন তারা একটা সন্ত্রাসী চক্রান্ত ধরে ফেলায় তিনি তাদের প্রশংসা করেছেন। তিনি ইসরায়েলের মানুষকে সাবধান করে দিয়ে বলেন, সামাজিক মাধ্যমে কোনো সন্দেহজনক পোস্ট দেখলেই তারা যেন কর্তৃপক্ষকে জানায়। কারণ সামাজিক মাধ্যমে এসব পোস্টের পেছনে তেহরান থাকতে পারে বলে উল্লেখ করেন তিনি।

অভিযুক্ত এক নারী তার স্বামীর সঙ্গে গিয়ে তেল আবিবে মার্কিন দূতাবাসের ছবি তুলেছিল। একই নারী স্থানীয় একটি শপিং সেন্টারের বিস্তারিত তথ্য ও সেখানে নিরাপত্তা ব্যবস্থা কেমন তা জানিয়েছিল।

ওই নারী তার ছেলেকে গোয়েন্দা বিভাগে সামরিক সার্ভিসে যাওয়ার জন্য উৎসাহিত করেছিল। তার ছেলের ফারসি ভাষার ওপর দখল কতটা সেটাও ইরানের গোয়েন্দা এজেন্ট ফোনে যাচাই করে দেখেছিল বলে ইসরায়েলের গোয়েন্দা সংস্থা জানিয়েছে।

৫৭ বছর বয়সী আরেক নারী বিভিন্ন কাজ করে পাঁচ হাজার ডলার পেয়েছিলেন। ওই নারীও তার ছেলেকে সিক্রেট সার্ভিস ইউনিটে যোগ দিয়ে তার মিলিটারি আইডির ছবি ইরানের এজেন্টের কাছে পাঠাতে বলেছিল। ট্রাম্প ক্ষমতায় থাকাকালীন তিনিও জেরুজালেমে মার্কিন দূতাবাসের ছবি তুলে পাঠিয়েছিলেন।

ইসরায়েলের গোয়েন্দা সংস্থার মতে, এই চরবৃত্তির চেষ্টা রীতিমতো গুরুতর অপরাধ। তবে তারা মনে করছে, চরবৃত্তির কাজে খুব একটা সাফল্য পায়নি অভিযুক্ত ব্যক্তিরা। অভিযুক্তদের নামপ্রকাশের ক্ষেত্রে আদালতের নিষেধাজ্ঞা থাকায় এ বিষয়ে বিস্তারিত জানানো হয়নি।

গোয়েন্দা সংস্থার বক্তব্য অনুযায়ী, ইরান দীর্ঘদিন ধরেই নেটমাধ্যমে রীতিমতো সক্রিয় এবং এটাকে তারা চরবৃত্তির হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করছে। সম্প্রতি তাদের তৎপরতা অনেকটাই বেড়ে গেছে।