আপনি করোনায় আক্রান্ত কী না, পরীক্ষা করুন নিজেই

এখন শুধু চীনেই নয়, সারাবিশ্বে আতঙ্ক ছড়াচ্ছে প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাস। এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে ৩ হাজারেরওি বেশি। আর আক্রান্ত হয়েছেন ৯৫ হাজারের উর্ধ্বে। এরই মধ্যে বিশ্বের কমপক্ষে ৭৫টি দেশে ছড়িয়ে পড়েছে প্রাণঘাতী এই ভাইরাসটি। আতঙ্কে এসব দেশের মানুষ এখন ঘর থেকেও বের হতে চান না।

তবে বিজ্ঞানীরা আতঙ্কিত না হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন। তারা বলছেন, কিছু নিয়ম মেনে চললেই এই ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা অনেকটাই কম। এই রোগের লক্ষণ কিছুটা সাধারণ সর্দিকাশি বা ফ্লুয়ের মতো বলে বোঝা সম্ভব নয় আসলেই সাধারণ ফ্লু নাকি করোনা। কিন্তু বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন নতুন সুখবর। এখন ঘরে বসেই জানা যাবে আপনি করোনায় আক্রান্ত কী না।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এই ভাইরাসে কেউ আক্রান্ত হলে এর লক্ষণ বুঝতে অনেকদিন সময় লাগে। সাধারণত করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে জ্বর বা কাশি নিয়ে হাসপাতালে যাওয়ার আগেই ফুসফুসের ৫০% ফাইব্রোসিস (সূক্ষ্ম অংশুসমূহের বৃদ্ধি) তৈরি হয়ে যায়, যার মানে অনেক দেরি হয়ে গেছে।

এরই মধ্যে তাইওয়ানের বিশেষজ্ঞরা একটি নতুন পদ্ধতি আবিষ্কার করেছেন। সেই পদ্ধতিতে কেউ করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন কি না, সেটা নিজে নিজেই পরীক্ষা করতে পারবেন। পদ্ধতিটি খুবই সহজ, প্রতিদিন সকালে উঠেই কয়েক সেকেন্ডের পরীক্ষায় নিশ্চিন্ত হতে পারেন।

পরীক্ষাটা হলো- পরিচ্ছন্ন পরিবেশে লম্বা একটা শ্বাস নিয়ে সেটাকে দশ সেকেন্ডের কিছুটা বেশি সময় ধরে আটকে রাখুন। যদি এই দম ধরে রাখার সময়ে আপনার কোনো কাশি না আসে, বুকে ব্যথা বা চাপ অনুভব না হয়, মানে কোনো প্রকার অস্বস্তি না লাগে, তার মানে আপনার ফুসফুসে কোনো ফাইব্রোসিস তৈরি হয়নি অর্থাৎ কোনো ইনফেকশন হয়নি, আপনি সম্পূর্ণ ঝুঁকিমুক্ত আছেন।

জাপানের চিকিৎসকরা আরেকটি সহজ উপদেশ দিয়েছেন যে, সবাই চেষ্টা করবেন যেন আপনার গলা ও মুখের ভেতরটা কখনো শুকনো না হয়ে যায়, ভেজা ভেজা থাকে। তাই প্রতি পনেরো মিনিট অন্তর একচুমুক হলেও পানি পান করুন।

তারা কারণ হিসেবে বলেছেন, কোনোভাবে ভাইরাসটি আপনার মুখ দিয়ে শরীরে প্রবেশ করলেও সেটি পানির সঙ্গে পাকস্থলীতে চলে যাবে, আর পাকস্থলীর এসিড মুহূর্তেই সেই ভাইরাসকে মেরে ফেলতে সক্ষম।